পাতা:আমিষ ও নিরামিষ আহার প্রথম খণ্ড.djvu/৬৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


هhyچ মুখী। দেবভাবে প্রকৃতির কল্যাণে সকলি সহজে সম্পন্ন হয় আর পিতৃভাবে বিজ্ঞানেয় বলে নানা কৃত্রিম উপায়ে সকল বিষয় সম্পন্ন করিতে হয় । মানবসমাজের শৈশবাবস্থায় দেবভাবের প্রাধান্য এবং বৃদ্ধাবস্থায় পিতৃভাবের প্রাধান্য। উন্নতির অন্ত বা চরম কালই পিতৃগণের প্রকৃত কাল বলিয়া ইতিহাসে উক্ত হইয়াছে। বৈদিক যুগের অস্তে অথৰ্ব্ববেদের কাল হইতেই সেকালের প্রকৃত পিতৃকালের আরম্ভ। অথৰ্ব্ববেদের মুলে পিতৃগণ। পূৰ্ব্বেই বলিয়া আসিয়াছি যে সচরাচর ঋষিরা অথৰ্ব্ববেদকে উচ্চ আসন দিতে চাহিতেন না কেন না অথৰ্ব্ববেদে পরের অনিষ্টকারী অভিচারাদি মন্ত্র স্থান পাইয়াছে । এই কারণেই অথৰ্ব্ববেদ বেদের মধ্যে সৰ্ব্ব নিম্ন আসন লাভ করিয়াছে । কিন্তু প্রথম প্রথম ঋষিসমাজে অথৰ্ব্ববেদ অনেকেয় নিকট ঘৃণিত হইলেও উত্তরোত্তর উহার শিষ্য বৃদ্ধি হইতে লাগিল। অথৰ্ব্ববেদ বিজ্ঞানে অনেক উন্নতির স্বত্রপাত করিয়া দিল । অথৰ্ব্ববেদ চিকিৎসা বিজ্ঞান প্রভৃতির আলোচনার দ্বারা ক্রমশঃ লোকের চিত্ত আকর্ষণ করিতে লাগিল। এই অথৰ্ব্ববেদ হইতেই আয়ুৰ্ব্বেদ ও তন্ত্রের উৎপত্তি। অভিচারাদি মন্ত্র আধুনিক তন্ত্রেকর একটা অঙ্গ দেখা যায়। চিকিৎসা শাস্ত্র তন্ত্রের অঙ্গী সুবৃহৎ এবং সৰ্ব্বপ্রাচীন চিকিৎসা গ্রন্থ চরক সংহিতার প্রকৃত নাম ‘অগ্নিবেশ তন্ত্র । এই অথৰ্ব্ববেদ, তন্ত্র ও চিকিৎসা শাস্ত্রের মূলে পিতৃগণ। সমগ্র জগতে পিতৃগণই একপ্রকার বৈজ্ঞানিক চর্চার মুলে । - ** আমরা দেখিলাম উন্নতি বা সভ্যতার তিনকালে তিনভাব বা তিন অবস্থা আসিয়া মানব সমাজকে ক্রমান্বয়ে তিন প্রকৃতির গঠিত করিয়া তুলে। প্রথম দেবপ্রকৃতি, দ্বিতীয় ঋষিপ্রকৃতি