পাতা:আরোগ্য - মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/১০০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কমল একটা গোঙানির মত আওয়াজ করে উঠবার চেষ্টা করে। মিনিটখানেক ধন্তাধস্তি করে আবার বিস্তুমিয়ে যায় । কাকা বললেন, প্ৰত্যেকটি লক্ষণ বাবার সঙ্গে মিলে যাচ্ছে । অন্য কাউকে চিনতে পারে না, কিন্তু বৌদিকে দেখলেই দাদা রেগে ওঠে, মারতে যায়। বাবাও মাকে দেখলেই ভায়োলেণ্ট হয়ে যেতেন । বৌদিকে সব বলেছি, আপনিও বুঝিয়ে বলবেন, বেশী যেন মন খারাপ না করেন। দাদা ঠিক সেরে যাবে, হয় তো ছ'মাসও লাগবে না । অনিমেষ কাতর ভাবে বলে, এটা ঠেকানো যায় না ? একবার হবেই সকলের ? নিৰ্ম্মলও কাতরভাবে বলে, হবেই বলা যায় না, সম্ভাবনা আছে। জ্যাঠামশায়ের হয় নি, তার বড় ছেলের বয়সও প্ৰায় পঞ্চাশ হল, তার হয় নি । কতগুলি নিয়ম পালন করলে নাকি ঠেকানো যায়। বাবা আমাদের ছেলেবেলা থেকে মাছমাংস খেতে দিতেন না, বার বার বলতেন কখনো যেন সিগারেট না ধরি। আরও অনেক নিয়ম মানাতেন, শিখিয়ে দিতেন । আমার চেয়ে দাদা এসব ভাল জানত, বড় হয়ে গ্রাহ করে নি। আমাদের মাছমাংস সিগারেট সব চলেছে। কিছুদিন থেকে ক্লাবে গিয়ে দাদা একটু একটু ড্রিঙ্ক করছিল। আমরা টের পাইনি, বৌদিকে বলেছিল যে ক্লাবে পাচজনের সঙ্গে মিশতে হয়, এক আধা পোয় না। C९८व्, ७.भळ८भ* i3 = । ড্রিঙ্ক সুরু করার ঠিক দু’তিন মাসের মধ্যে অ্যাটাকাটা হল। খানিকক্ষণ চুপচাপ থেকে অনিমেষ বলে, তোমরা তোমাদেরচিকিৎসা চালিয়ে ষাও, আমি একজন স্পেশালিষ্টকে দেখাব ৷ গাড়ী চালাতে চালাতে কেশব ভাবে, তার অসুখ বেড়ে চলতে, চলতে একদিন সেও যদি পাগল হয়ে যায় ? 分°