পাতা:আরোগ্য - মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/১১০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


সঙ্গেই এরা মিনুর রিয়ে দেবে জেনে মায়ার সমস্যাটা জরুরী হয়ে উঠেছিল। মিনুর বিয়ের আগেই তাকে মনস্থির করে ফেলতে হত । তারা দু’জনে স্বাধীন মানুষ, এ জগতে কারো কোন ক্ষতি না করে পরস্পরকে ভালবেসেছে। তাদের সম্পর্কের গোপনতা শুধু তাদেষই সুবিধার জন্য । কলঙ্কের ভয় তার করে না । জানাজানি হলে তারা প্ৰকাশ্য ভাবেই একসঙ্গে বাস করবে। সম্ভব হলে আইনসঙ্গত ভাবে, সামাজিকভাবে । সে স্বার্থপর হোক, সারা জীবনের জন্য মায়ার দায়িত্ব নিতে তেমন উৎসাহ বোধ না করুক, এ হিসাবে তার ফাকি নেই। ভাল লাগুকি বা না লাগুক, জানাজানি হলে সে তো আর মায়াকে ফেলতে পারবে না । কিন্তু রঞ্জনের সঙ্গে মিনুর বিয়ের প্রস্তাব কলঙ্কের প্রশ্নটা অন্যদিক দিয়ে গুরুতর করে তোলে । এখন জানাজানি হোক, কলঙ্ক রটুক, সে হবে শুধু তাদের দু’জনের কলঙ্ক, দু’বাড়ীর দু’টি মানুষের । তারা দু’জন বাড়ী থেকে বিদায় নিলেই চুকে গেল। কিন্তু রঞ্জন আর মিনুর বিয়ে হলে একটা সম্পর্ক সৃষ্টি হবে দু’টি পরিবারের মধ্যে । কলঙ্ক তখন আর তাদের দু’জনের থাকবে না, তখন আঘাত গিয়ে লাগবে দু’টি পরিবারের গায়েই। তারা দু’জন চিরকালের জন্য চলে গেলেও লাগবে । অথচ এদিকে গোপনত বজায় রাখতে বাধ্য হলেই, জানাজানি হওয়াকে ভয় করলেই তার আর মায়ার সম্পর্ক দাড়িয়ে যাবে অন্যায়, অসঙ্গত । তাই কি করবে না করবে তাকে ঠিক করে ফেলতেই হয় মিনুর বিয়ের কথা পাকা হবার আগেই । So up