পাতা:আরোগ্য - মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/১৫৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কাছাকাছি গিয়ে শুনতে পায় ভিতরে আট দশটি তাজি কণ্ঠকে ললনা তালিম দিচ্ছে । গাভী বারন্দার নীচে সিড়িব কোণে বসে নিমাই বিড়ি ফকিতে ফুকতে গান শুনছে ।

কি রে নিমাই, দোকানে কাজ নেই ?
দোকানে তো সারাদিন কাজ-সকাল থেকে রাত দশটা পৰ্যন্ত ।

গান শুনতে পালিয়ে এয়েছি । কেশব ও গান শোনে । সঙ্গজ তেজী সুর, সরল জোবালো কথা । দেশজোড়া মানুঘেব অভাব অভিযোগ দাবী দাওয়ার গান । নতুন গান । আগে কখনো শোনে নি । গান শুনতে শুনতে কয়েকবার রোমাঞ্চ হাস কেশবের । কিন্তু এ যেন অন্য রকমের রোমাঞ্চ, আগে ললনার গান শুনে যেমন তােত ঠিক সে १० का ! আগের মত আজ আর রোমাঞ্চের সঙ্গে ভিতবে কোনরকম কষ্টকর অনুভূতি লাগছে না । গান থামতেই নিমাই উঠে দাড়িযে বলেন, পালাই। ওদিকে আবার গোসা করবে ।

তোর দেশের খবর কিরে ?

নিমাই যেতে যেতে জবাব দেয়, ওই খবর, দুভিক্ষ । মান্তম উপোস দিয়ে মরছে । ভিতর থেকে জন দশেক তরুণ-তরুণী কথা বলতে বলতে বেরিযে এসে চলে যায় । কেশব একটা বিড়ি ধরায় । Se G