পাতা:আরোগ্য - মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/১৭২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কোনদিন প্রশ্রয় দিইনি, দেবার দরকারও হয়নি। আপনি বরাবর সংঘাত থেকেছেন, মানিয়ে চলেছেন । কেশব বলে আপনি যখন সিনেমায় ঢুকেছেন, আর সলিম রাখব না, মানিয়ে চলাব না । ললনা নিশ্বাস ফেলে বলে, আপনি বুঝবেন না। আপনি শুধু বাইরে থেকে দেখছেন "আমাদের । কমলদ’র চিকিৎসা বন্ধ হয়ে গেছে। খবর রাখেন ? বাবা দিদিকে জানিয়ে দিযেছে আর টানতে পারবে না । ডাক্তার দত্তের চিকিৎসা বন্ধ করে সেই পুরাণে চিকিৎসাহ করা হোক । দিদি বিছানা নিযেছে, খাওয়া-দাওয়া বন্ধ করে শুধু কঁদছে। অনিলবাবু কাকাদের রাগ ভাঙ্গাতে ছুটে গেছেন । রাগ ভাঙ্গাবে কিনা, পুরাণে চিকিৎসাটাও কমলদা’র জািটবে কিনা। ঠিক নেই। で

उछाडादा गड
তাই তো বলছিলাম। আপনি আমাদের বাইরেটাই শুধু দেখেছেন ভেতরের খবর জানেন না । ডাক্তার দত্ত টাকা চান না, টিটমেণ্ট চালিয়ে যেতে রাজী আছেন। কিন্তু তাই বলে অন্য খরচ গুলিও কি তিনি নিজের পকেট থেকে দেবেন ।

ললনা সোজাসুজি তার মুখের দিকে তাকায়। প্রাচীন বটগাছটার পাতার ফাক দিয়ে তার মুখে এক ঝলক রোদ এসে পড়েছে।

আপনি বাবাকে বোকা বলছিলেন । আগে হলে আপনার গালে আমি চড় বসিয়ে দিতাম। আমি নিজেই বাবাকে বোকার বেহদ্দ বলে জেনেছি। তাই বাপ তুলে গাল দিয়ে রেহাই পৌঁধে গেলেন। বাবা সত্যি বোকা । দুটো পয়সা রোজগার করেছে, ভেবেছে আমি মস্ত বাহাদুর। কিভাবে পয়সা কামিয়েছে সেটা কোনদিন ভাবে

Ver