পাতা:আরোগ্য - মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/২৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


চারিদিকে কানু মিস্ত্রীকে নিয়ে কি রকম টানাটানি, আগে থেকে বলে না রাখলে সেও যে কানু মিস্ত্রীর পাত্ত পাবে না, এখবর তো আর ভদ্রলোক রাখে না । ওয়ার্কশপের মধ্যে একটা শূন্যে তোলা গাড়ীর তলায় আধশোয়ার মত বাকা হয়ে বসে কানু গাড়ীটার হৃদপিণ্ডে কি একটা চিকিৎসা চালাচ্ছিল। নিশ্চয় কঠিন আর গুরুতর চিকিৎসা । কেশব ডাকে, কানু ? কানু বলে, দাড়া । বলে প্ৰায় আধঘণ্টা নিঃশব্দে একমনে ইঞ্জিনটার চিকিৎসা চালিয়ে যেন চটেমটেই বেরিয়ে আসে । গায়ের তেলকালি মাখা কভারটা খুলে ফেলতে ফেলতে ঝাঝের সঙ্গে বলে, ব্যাটার যত সব ধ্যাধ্যেরে পচা মরা গাড়ী এনে দেবেআর আমায় হুকুম করবে। কানু সারিয়ে দাও। : cकन, १ाएँीछे 6ड। नडून व्लॉ१एछ ? : গাড়ী তো নতুন, ইঞ্জিনটা ঠাকুর্দার চেয়ে বুড়ে । ঠাকুর্দার হাড়ের চেয়ে রদ্দি মাল দিয়ে ইঞ্জিনটা করেছে। শুধু বাইরেটা দেখে এ গাড়ীটা কেউ কেনে ? ওয়ার্কশপের মালিক হারেনের পরণে মিলিটারীর পরিত্যক্ত ফুল প্যাণ্ট আর সার্টে সিভিলিয়ানী সামঞ্জস্য করা বেশ। মুখের চামড়া যেন শুকনো আমসির ছাল দিয়ে গড়া ।

কাল কিন্তু গাড়ীটা ছাড়তেই হবে কানু। রসিকবাবুর ভাগ্নের

গাড়ী। রসিকবাবুর কাকাই কিন্তু গাড়ীটারীর ব্যাপারে কর্তা । কানু বলে, গাড়ীটার শ্রাদ্ধ করতে বলে দিন। হরেন চটে বলে, কি রকম ?