পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (চতুর্থ বর্ষ).pdf/২৮৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


RV) o আৰ্য্যাবর্ত ৪র্থ বর্ষ-৪র্থ সংখ্যা । কাহকেও গালি দেন না । মেকির উপর রাগ আছে বটে, তা ছাড়া সবটাই রঙ্গ, সবটা আনন্দ । কেবল ঘোর ইয়ারকি । * * অন্যত্র তাও না কেবল আনন্দ ।” যিনি “শক্রিতা করিয়া কাহাকেও গালি দেন না।” তিনি মোটা লাঠি লইয়া সজোরে শক্রির মাথায় মারিবেন কেন ? বঙ্কিমচন্দ্ৰ স্বয়ং দ্বিবিধ রসিকতাতেই পটু ছিলেন। আবার একই প্রকারের রসিকতার sBDBBDLL DS BD DD DBDDDBD BLSSDDDBBBS BBDDBS BBS তেন তখন রসিকতার এক রূপ। আর যখন তিনি সমালোচ্য গ্ৰন্থ হইতে “গুলঞ্চের পতিনিষ্ঠা দেখে আমার ইচ্ছা হচ্চে যেন আমি তার মতন অনন্ত বাহু-শৃঙ্খলে আবদ্ধ করে, নারীজীবনের সার পতিরূপ সারাল নিমতরুকে চিরকাল বক্ষস্থলে ধারণ করি”-উদ্ধত করিয়া বলিয়াছিলেন—“এমন পিত্ত । নাসিক উপমা কস্মিনকালে দেখি নাই।” তখন রসিকতার অন্য রূপ । বঙ্কিমচন্দ্ৰ মোটা রসিকতার স্থানে মিহি রসিকতাকে বরণ করিয়া বসাইয়াছিলেন । এ বিষয়ে রবীন্দ্ৰনাথ বঙ্কিমচন্দ্রের সম্বন্ধে বলিয়াছেন - “নিৰ্ম্মল ; শুভ্ৰ সংযত হাস্য বঙ্কিমই সৰ্ব্বপ্রথমে বঙ্গ সাহিত্যে আনয়ন করেন। তৎপূৰ্ব্বে বঙ্গসাহিত্যে চাস্যরসকে অন্য রসের সহিত এক পংক্তিতে বসিতে দেওয়া হইত না । সে নিয়াসনে বসিয়া শ্ৰাব্য অশ্রাব্য ভাষায় ভাড়ামি করিয়া সভাজনের মনোরঞ্জন করিত । আদি রসেরই সহিত যেন তাহার কোন একটি সর্বউপদ্রব্যসহ বিশেষ কুটম্বিতার সম্পর্ক ছিল এবং ঐ রাসটাকেই সর্বপ্ৰকার পীড়ন ও আন্দোলন করিয়া তাহার অধিকাংশ পরিহাস বিদ্রুপ প্ৰকাশ পাইত। এই প্ৰগলভ বিদূষকটি যতই প্ৰিয়পাত্ৰ থাক কখনও সম্মানের অধিকারী ছিল না। যেখানে গম্ভীর ভাবে কোন বিষয়ের আলোচনা হইত। সেখানে হাস্যের চপলতা সর্বপ্রযত্নে পরিহার করা হইতে ।” এ কথা কিঞ্চিৎ অতিরঞ্জিত হইলেও ভিত্তিহীন নহে। আমরা পূর্বেই বলিয়াছি, বঙ্গ সাহিত্যে-বাঙ্গালীর কথায় যে নিৰ্ম্মল, শুভ্ৰ, সংযত DBDSDD BS TBDD DYYYDB SDDB DBDBBDB BBD DDBBD DD SS BDBB পর রবীন্দ্ৰনাথ বলিয়াছেন,-“বঙ্কিম সর্বপ্রথমে হাস্যরসকে সাহিত্যের উচ্চ শ্রেণীতে উন্নীত করেন। তিনিই প্ৰথম দেখাইয়া দেন যে, কেবল প্রহসনের সীমার মধ্যে হাস্যরস বদ্ধ নহে, উজ্জল শুভ্ৰ হাস্য সকল বিযয়কেই আলোকিত করিয়া তুলিতে পারে। তিনিই প্ৰথম দৃষ্টাস্তের দ্বারা প্রমাণ করাইয়া দেন যে, এই হাস্যজ্যোতির সংস্পর্শে কোন বিষয়ের গভীরতার গৌরব