পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (চতুর্থ বর্ষ).pdf/৫৭০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


BiBBBS BDSuS S SuSSuSLLeeS ইচ্ছা করিলে আজ তােমাকে এ স্থান হইতে দূর করিয়া দিতে পারি।” নরেশ । গজিতে লাগিল বটে, কিন্তু ঠাকিল। “ভাল, দেখা যাউক” বলিয়া সে শ্বশুরকে । আসিবার জন্য টেলিগ্ৰাম করিল। ' . : পরদিন প্রাতে সারদাচরণ যখন খনিতে পৌছিলেন, তখন খনিতে বিস্ময়কর ব্যাপার ঘটয়া গিয়াছে। নরেশ ও মর্গ্যান একই বাঙ্গলোর দুইটি কক্ষে । থাকিত। নিশীথে বাঙ্গলোয় পিস্তলের আওয়াজ শুনিয়া ভৃত্যগণ দুটিয়া । আসিয়া দেখে, নরেশ মর্গ্যানের কক্ষ হইতে বাহির হইতেছে। সে কক্ষ ... " অন্ধকার—ধুমপূর্ণ। তাহার পর, সকলে আলোক আনয়ন করিয়া দেখে, , মর্গ্যানের মৃতদেহ শয্যায় পড়িয়া আছে—পিস্তলের গুলী তাহার বক্ষ ভেদ । করিয়াছে। নরেশের পিস্তল হৰ্ম্ম্যতলে পড়িয়া আছে। পুলিশ আসিয়া তদন্ত । করিল। সে দিন নরেশের সহিত মর্গ্যানের কলহের কথা-নরেশের অপমানের কথা পুলিশ শুনিল। তাহার পর পুলিশ দেখিল, নরেশ ও মর্গ্যান এই বাঙ্গলোয় । থাকিত ; শুনিল, তৃত্যগণ আসিয়া নরেশকে মর্গ্যানের কক্ষ হইতে নিস্ক্রান্ত । হইতে দেখিয়াছিল। একটার পর একটা ঘটনা যুক্ত করিয়া পুলিশ যে শৃঙ্খল নিৰ্ম্মাণ করিল, শেষে মর্গ্যানের কক্ষে হৰ্ম্ম্যতলে নরেশের পিস্তল পাওয়ায় । সে শৃঙ্খল নরেশকেই বদ্ধ করিল। পুলিস নরেশকে গ্রেপ্তার করিবে স্কুি • করিল। কিন্তু সহসা নরেশকে আর পাওয়া গেল না। সে যেন সকলেরা, চক্ষুতে ধূলি দিয়া সহসা বাতাসে মিশাইয়া গিয়াছে! পুলিস অনেক অনু- { সন্ধান করিয়াও তাহকে পাইল না । সারদাচরণ সব কথা শুনিলেন, পুলিশকে কৰ্ত্তব্য কাৰ্য্য করিতে বলিলেন্টযে হত্যাকারী, তাহার শাস্তি হওয়াই বাঞ্ছনীয়। তাহার পর, সহকারী কাৰ্য্যধ্যক্ষকে কাৰ্যভার দিয়া তিনি কলিকাতায় ফিরিলেন। খনির জমাদার স্বয়ং', র্তাহার ব্যাগ-বিহিয়া ষ্টেশনে চলিল ও পথে তাহাকে একখানি পত্ৰ দিল।। পত্ৰখানি নরেশের লিখা। সে নোটবুকের পাতা ছিড়িয়া পেন্সিলে পত্ৰ । লিখিয়াছে,-“আমি নিৰ্দোষ। কিন্তু ঘটনাচক্ৰে তাহা প্রমাণ করা দুঃসাধ্য - দেখিতেছি। যদি কখন আমার কথা প্রমাণ করিতে পারি, তবে ফিল্পিী । আসিব ; নহিলে নহে। “জমাদার রামদীন আমাকে রক্ষা করিয়াছে। তাহাকে । পুৱষ্কৃত করা আমার অভিপ্রেত।” • , ; রামদীন প্রভুকে জানাইল, সে পুলিশের অভিপ্রায় বুঝিতে পারিয়া নিরে