পাতা:আর্য্যাবর্ত্ত (দ্বিতীয় বর্ষ - প্রথম খণ্ড).pdf/৩০০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


২৬৮ : আৰ্যাৱৰ্ত্ত। ২য় বর্ধ-৪র্থ সংখ্যা - উক, মুটো (fecteur) আসিয়া জিনিষপত্র নামাইল। এ দেশের মুটের মাথায় মোট বহে না ; হয় ঠেলাগাড়ীতে জিনিষ। তুলিয়া হাত দিয়া ঠেলিয়া লইয়া যায়, নহেত একটা চামডার দল দিয়া জিনিষগুলি বাধিয়া স্কন্ধে ফেলিয়া । লয়। মুটেরা সকলেই রেল কোম্পানীর নিকট মাহিয়ানা পায়, কাজেই যাত্রীদের নিকট যেটা পায় সেটা সবই “উপরি লাভ” । ষ্টেশনটি খুবই বড়। এরূপ ষ্টেশন প্যারিসে আরও আটটি আছে। ষ্টেশনে JKR Fțã, Fetišừ Selfs Efst si “Beware of Pickpockets” অর্থাৎ গাঁটকাটার ভয় ; সাবধান ! ইংলণ্ডে এ রকম বিজ্ঞাপন ট্রাম, টিউব, DBD S BBuD DBBB SBBK DDSBKL BDDL BDD DBDDSLLLLLL and female” অর্থাৎ পুরুষ ও স্ত্রী দুই জাতীয় গাটিকাটা, সাবধান । ষ্টেশনের বাহিরে আসিয়াই বুঝিলাম, এ আমাদের দেশ নহে। রাস্তা পরিষ্কার ও পাতর দিয়া বঁধান। বাহিরে বড় বড় হোটেলের ख्ञम्नवन् গাড়ী অপেক্ষা করিতেছে ও অনেক ভাড়াটে গাড়ী রহিয়াছে। অমনিবাস ও গাড়ী দুই রকম, ঘোড়ায় টানা ও মোটর (বৈদ্যুতিক ), ভাড়াটে ঘোড়ার গাড়ীতে Taximeter বসান ; ভাড়ার জন্য গাড়ায়ানের সহিত বকবকি করার প্রয়োজন হয় না। অবশ্য Meter এ যে ভাড়া লিখে তাহার উপর যৎকিঞ্চিৎ ( Tip ) গাড়োয়ানকে দেওয়া নিয়ম ; টিপ অথবা পুর বোয়ার ( Pour boire), য়ুরোপে অত্যন্ত চলিত ; উঠিতে বসিতে খাইতে শুইতে সকলকেই টিপ, দিতে হয়। হোটেলেও এই পাপ ; শুনিয়াছি, কম টিপ দিলে হোটেলের লোেকরা মালপত্রের উপর গুপ্ত সঙ্কেত লিখিয়া দেয়, অন্য হোটেলে যত্ন পাওয়া যায় না। তবে সব দেশের চেয়ে ইংলণ্ডে টিপের প্রচলন কম। তথায় ও দুই একটি হোটেল আছে যথায় ওয়েটারদের খানার পর স্বর্ণ भूद्ध| 7ि° দিতে 夜邪, তাহাই নিয়ম। BKLLBBS K BDD DTuT DDD DDD BBLBDB LBDtD ८बङन ठ পায়ই না ; অধিকন্তু অধিকারীকে অনেক টাকা দিয়া ( premium ) চাকরী পায়। আমি এক গাড়ী ভাড়া করিয়া টমাস কুকের অফিসে বন্ধুর সন্ধানে চলিলাম। বলিতে ভুলিয়াছি, ভাড়াটে গাড়ী সবই খোলা, ফিটন জাতীয়। কুকের অফিসে কৰ্ম্মচারীরা বলিল, “লোকদের ঠিকানা আমরা কাহাকেও বলি না।” অনেকক্ষণ । বকা বকি করার পর ঠিকানা বলিয়া দিলে, গাড়োয়ানকে সেই ঠিকানায় যাইতে বলিলাম। সে অনেক ঘুরিয়া প্রায় ১২॥০ টার সময় বন্ধুদিগের ফ্ল্যাটেলের সম্মুখে লইয়া গেল। যাইয়া দেখি, তিন জন বাঙ্গালী আমার জঙ্গ,