পাতা:আর্য্য-নারী দ্বিতীয় ভাগ.djvu/১১৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

o আর্য্য-নারী । পারিল না। একে একে রাজপুতরাজগণ ইংরেজের আশ্রয় গ্রহণ করিলেন । রাজপুত জাতির এই হীনতা, দুর্বলতা, বিড়ম্বনার দিনে, একটি রাজপুত-যুবতী অপূর্ব আত্মবিসর্জনে রাজপুত মহন্ধের শেষ দৃষ্টান্ত রাখিয়া ইহলোক হইতে বিদায় নিলেন । এই যুবতী—মিবারের রাণা ভীমসিংহের কন্যা কৃষ্ণকুমারী। ** ( R ) 疆 --বনকফঞ্চকুমারী পরম রূপবতী ছিলেন। রূপবতী বলিয়া লোকে হঁহাকে “রাজস্থান-কুসুম” বলিত। রাজপুতরমণীর রূপ চিরদিনই রাজপুত জাতির সহস্র বিপদ ডাকিয়া আনিয়াছে; কৃষ্ণকুমারীর রূপও মিবারে তুমুল বিপ্লব আনিয়া উপস্থিত कब्शि । মারবারের রাজার সঙ্গে কৃষ্ণকুমারীর বিবাহ সম্বন্ধ হয়। তাহার মৃত্যু হইলে, জয়পুরের রাজা জগৎ সিংহের সঙ্গে, ভীমসিংহ, কন্যার বিবাহের সম্বন্ধ স্থির করিলেন ; তখন মারবারের নূতন রাজা মানসিংহ, বলিয়া পাঠাইলেন, মারবারের ভূতপূৰ্ব রাজার উত্তরাধিকারী স্বরূপ তিনিই কৃষ্ণকুমারীকে পাইবার অধিকারী । পূর্বেই আমরা বলিয়াছি, এই সময়ে মারাঠাশক্তি ভারতে সর্বপ্রাধান্য লাভ করিয়াছিল । উড়িষ্যা হইতে গুজরাট পর্য্যন্ত সমগ্র মধ্যভারত এবং গুজরাটের দক্ষিণ হইতে বরাবর বর্ত্তমান বোম্বে প্রদেশ মারাঠা জাতির শাসনাধীনে ছিল ।