পাতা:আর্য্য-নারী দ্বিতীয় ভাগ.djvu/২৯৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

রাণী ভবানী । 总b忘 করিলে ?” দয়ারাম হাসিয়া কহিলেন,-“মা, আমাদের রাজা আপনিই রাজার মত আমাকে দিয়া জুতা খোলাইয়া রাজার আসনে গিয়া বসিয়াছেন । আমাদের কাহারো পছন্দের অপেক্ষা তিনি রাখেন নাই । রাজা রামজীবন, রাজা রামকান্ত, যার কথামত চলিতেন, তাকে দিয়া যে বালক জুতা খোলাইয়া লইল, তার উপরে আর এ রাজ্যের রাজা কে হইতে পারে ? ঐ বালকই আমাদের রাজা ; আপনি উহাকেই দত্তক রাখুন।” এই বালককে যথাবিধি দত্তক গ্রহণ করিয়া রাণী ভবানী তঁহার নাম রামকৃষ্ণ রাখিলেন। ( 8 ) নীলাঙ্গালার শেষ স্বাধীন নবাব দুর্ভাগ্য সিরাজদ্দৌলার নাম এদেশে সকলেই জানেন। ইতিহাসে ও লোকমুখে সিরাজদ্দৌলার নামে অনেক কলঙ্কের কথা শোনা যায়। তাহার অমানুষিক নিষ্ঠুরতা ও অকর্ম্মণ্যতা-সম্বন্ধে যে কথা আছে, তাহা অমূলক বলিয়া কোন কোন ঐতিহাসিক অনেক sD D BDLDBOS SDBS SDD BB DzzB B উচ্ছঙ্খলপ্রকৃতি এবং ইন্দ্রিয়পরায়ণ ছিলেন, একথা সকলেই স্বীকার করেন। যৌবনের প্রথম হইতেই তাহার উচ্ছঙ্খলতা ও ইন্দ্রিয়ালালসা এত বেসি প্রকাশ পায় যে বাঙ্গালার প্রধান জমিদার ও রাজকর্ম্মচারিগণ প্রায় সকলেই তাহার উপর নিতান্ত বিরক্ত হইয়া উঠেন ।