পাতা:আর্য্য-নারী দ্বিতীয় ভাগ.djvu/৩১৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

Noyo আর্য্য-নারী স্বপ্ন দেখিয়া রাণী ভবানীর জমিদারী পত্তিনের সংকল্প ত্যাগ করিলেন, এইরূপ লোকপ্রবাদ আছে। রাণী ভবানীর পুত্র রাজা রামকৃষ্ণের ধর্ম্মসাধনার দিকে প্রবল আকর্ষণ ছিল । বিষয়ধর্ম্ম ও সংসার ধর্ম্ম ত্যাগ করিয়া তিনি করতোয়ার তীরে পীঠস্থান ভবানীপুরে অপর্ণদেবীর মন্দিরে বসিয়া তপস্যা করিতেন। রাণী ভবানী তাঁহাকে সংসারধর্ম্মে ফিরিয়া বিষয়কর্ম্ম দেখিবার জন্য অনেক অনুরোধ করেন। তিনি বলিতেন,-“তোমার হাতে বৃহৎ রাজ্যের মত এত বড় জমিদারীর ভার। বহুলোকের কল্যাণ তোমার উপর নির্ভর করিতেছে। গৃহে থাকিয়া বিষয়কর্ম্ম দেখিয়া, সাধনা ও লোকসেবা দুই-ই কর। লোকসেবা করিবার শক্তি ও অধিকার দেবতা যাহাকে দিয়াছেন, লোকসেবাই তাহার পক্ষে প্রধান ধর্ম্ম। সে ধর্ম্ম অবহেলা করিলে দেবতার কাছে তাহাকে পাপী হইতে হয় । আমি বৃদ্ধ হইয়াছি; এখন আর এত বড় জমিদারীর পরিদর্শন করিতে পারি না । এ জমিদারী এখন তোমার, তোমার পরিাদর্শনের অভাবে ইহা নষ্ট হইবে । ইহার আয় হইতে এ পর্য্যন্ত যে সব ধর্ম্মসেবা ও লোকসেবা হইয়াছে, তাহাঁতে অনেক ব্রাহ্মণ ও দীনদরিদ্রের হিত হইয়াছে। ইহা নষ্ট হইলে তাহ আর হইবে না। বিষয়কর্ম্মে অবহেলা করিয়া বিষয় সম্পত্তি সব নষ্ট করিয়া লোকহিতে আঘাত করিও না : এ বিষয়কর্ম্ম দেখিলে তুমি পাপের ভাগী হইবে না। দেবতার তুমি সাধনা করিতেছ, তিনিও ইহাতে তোমার উপর শ্রীত হইবেন । তোমার সাধনা ও