পাতা:আলোচনা - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৫৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ভূলিয়া পরের জন্য প্রাণপণ করি তখনি দেখি স্বখের সীমা নাই। তখন সহসা অনুভব করিতে । থাকি, সমস্ত জগৎ আমার স্বপক্ষে। আমি । ছিলাম ক্ষুদ্র হইলাম অত্যন্ত বৃহৎ । চন্দ্র সূর্যের সহিত আমার বন্ধুত্ব হইল । জগত সোতে ভেসে চল যে যেথা আছ ভাই, চলেছে সেথ রবিশশি চলরে সেথ যাই ! তপক্ষপাত । জগত ত কাহাকেও একঘোরে করে না, কাহারে ধোপ নাপিত বন্ধ করে না । চন্দ্র সূৰ্য্য রোদ বৃষ্টি, জগতের সমস্ত শক্তি সমগ্রের এবং প্রত্যেক অংশের অবিশ্রম সমান দাসত্ব করিতেছে। তাহার কারণ এই জগতের মধ্যে