পাতা:ইন্দুমতী - যতীন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায়.pdf/১১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


প্রথম সৰ্গ । NO) యీస్థానాయీతasయి. প্ৰচণ্ড তাগুবে করি ঘোর আস্ফালন, করিল বিব্রত ধরা। মাঝে মাঝে শুধু অনল ঝলক ঢালি হাসি সৌদামিনী, চকিতে দেখায় ওই ভৈরবী মুরতি শান্তিময়ী প্ৰকৃতির। কোমলা প্ৰকৃতি, করুণার প্রস্রবণ, হইয়াছে আজি ভীষণ ভৈরবী সমা, আলু থালুকেশা, সুষম লাবণ্য হীনা, মুখে আট হাসি, গিয়াছে চলিয়া কোথা কোমলতা তার । এ হেন সময়ে দূরে জাহ্নবীসলিলে,” যুগল আরোহী পূর্ণ একটী তরণী, উঠিছে পড়িছে পুনঃ সজোরে আছাড়ি উত্তাল তরঙ্গ মাঝে ফেণী পুঞ্জময় । সাপটি ধরিয়া কৰ্ণ ডাকিছে নাবিক, “বদর বদর বল, জোরে টান দাড়, নিৰ্ভয় হৃদয়ে যুব তরঙ্গের সনে ; যা আছে কপালে হবে নিয়তির লেখা, টান জোরে, আরো জোরে-বদর বন্দর” । তরণী ভিতরে বসি, অনিন্দ্য সুন্দর, প্রথম যৌবনে স্ফীত, পূর্ণ গৌর দেহ, জায়া পতি দুই জন রয়েছেন স্থির। দেবব্রত পতি, জায়া ইন্দুমতী তার।