পাতা:ইন্দুমতী - যতীন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায়.pdf/১৯০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।
১৭৬
ইন্দুমতী।

চাহিয়া তাঁহার প্রতি    আশ্চর্য্য হইয়া অতি
পঙ্কজিনী বুঝিলেন ইনি কোন জন,
নিকটে নগেন্দ্র ছিল    তাহারে বলিয়া দিল
সন্ধান লইতে ইন্দু-পতির তখন।
এদিকে আরতি শেষে    দেবব্রত উঠে এসে
রাধিকারে লয়ে সাথে ধীরে ধীরে ধীরে,
তাঁ’দের সম্মুখ দিয়া    সোপানে উঠিয়া গিয়া
নবীনের সাথে গেল নগর ভিতরে।
শিক্ষা ও সংযম ফলে    হৃদয় বাঁধিয়া বলে,
উদাস নয়নে ইন্দু রহিল চাহিয়া,
বিষাদ কাতর স্বরে    কহিলা পঙ্কজ তা’রে
“এমনি পাষাণ বটে পুরুষের হিয়া।”


প্রভাতে গঙ্গার তীরে    ভ্রমিতে ভ্রমিতে ধীরে
দেবব্রত দেখিলেন একটী সন্ন্যাসী,
চাহিয়া তাঁহার পানে    রহিয়াছে এক মনে
নদীর সৈকতে এক শিলাসনে বসি।
নিকটে আসিয়া তিনি    তখনি তাঁহারে চিনি
ছুটে গিয়ে ধরিলেন পা দুখানি তাঁ’র,
বলিলেন “মনে আছে    আমি যে তোমারি কাছে,
পেয়েছি জীবন রক্ষা কি কহিব আর?