পাতা:ঈশ্বরচন্দ্র গুপ্তের জীবনচরিত ও কবিত্ব.djvu/১৭৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


レ”8 কবিতাসংগ্রহ। তুমি যার পেটে যাও, সেই পুণ্যবান । সাধু সাধু সাধু তুমি, ছাগীর সন্তান । ত্রিতাপেতে তরে লোক, তব নাম নিয়া । বাচালে দক্ষের প্রাণ, নিজ মুণ্ড দিয়া ॥ চাদমুখে চাপদাড়ি, গালে নাই গোপ। শৃঙ্গ খাড়া ছাড়া ಬ್ಲ; লোমে লোমে থোপ ॥ সে সময়ে অপরূপ, মনোলোভা শোভা । দৃষ্টি মাত্র নেড়ে গাত্র, কথা কয় বোবা ॥ স্বর্গ এক উপসর্গ, ফল তাহে কলা । দিবানিশি পোড়ে থাকি, ধোরে তোর গলা ॥ চারি পায়ে ছাদ দিয়া, তুলে রাখি বুকে । হাতে হাতে স্বর্গ পাই, বোকা গন্ধ মুকে ॥ শুধু যায় পেট ভোরে, পাটারাম দাদা। ভোজনের কালে যদি, কাছে থাকো বাধা ॥ শাদা কালো কটারূপ, বলিহারি গুণে । সাত পাত ভাত মারি, ভ্যা ত্যা রব শুনে ॥ মহিমায় নাম ধর, শ্ৰীমহাপ্রসাদ । তোমার প্রসাদে যায়, সকল বিষাদ ॥ জ্বাল দিতে কাল যায়, লাল পড়ে গালে । কাটন কামাই হয়, বাটনার কালে । ইচ্ছা করে র্কাচ খাই, সমুদয় লোয়ে । হাড়গুদ্ধ গিলে ফেলি, হাড়গিলে হোয়ে ।