পাতা:ঈশ্বরচন্দ্র গুপ্তের জীবনচরিত ও কবিত্ব.djvu/৩৬৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


&ፃ8 কবিতাসংগ্ৰহ প্রেমভাবে কাছে এসে, ঈষৎ কটাক্ষে হেসে, একেবারে প্রাণ নিলে কেড়ে । থেকে থেকে আড়ে আড়ে, আড়চক্ষে দৃষ্টি ছাড়ে, ভাব দেখি ত্রিভুবন ভোলে। চক্ষে শোভা নাহি তুল, অৰ্দ্ধফোটা পদ্মফুল, পবনহিল্লোলে যেন দোলে ॥ তুলনা তুলনা তার তুলনা কি আছে আর, সে রূপের নাহি অনুরূপ। হাস্যভরা আস্তখানি, গলিত অমৃত বাণী, ললিত লাবণ্য অপরূপ ৷ কলেবর কমনীয়, নহে কাম গণনীয়, রতির সে রমণীয় নয় । ভাবে সব ভাবে স্বীয়, স্বভাবে স্বভাবপ্রিয়, ম্ৰিয় হেরে ম্রিয়মুনি রয় ॥ অনুরাগ অভিপ্রায়, স্থিররূপে দীপ্তি পায়, আশা চায় উভয়ের আশা । দয়া প্রেম সরলতা, এক ঠাই যুক্ত তথা, হৃদয়েতে মাধুর্য্যের বাসা ॥ বুঝে সব অভিমত, মনোমত কত মত, মনোভাব ব্যক্ত করি মুখে । বিপক্ষেরে দূষিয়াছে, শোকসিন্ধু শুষিয়াছে, তুষিয়াছে সস্তোবেরে মুখে ॥