পাতা:উড়িয়া স্বতন্ত্র ভাষা নহে.djvu/৫৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


( રક્ત ) নের পদ দক্ষিণে ও উত্তরে সমভাব আছে । সুবর্ণরেখার উত্তরে অনেক স্থানে, দক্ষিণদেশ-বাসীদের ন্যায় অশিক্ষিত অনেক বিষয়ি-লোকে আমি স্থানে জামিছ ব। আম্মিহ ও তুমি স্থানে তুমিহ বা তুম্মিহ এইরূপ লিখিয়া ও কহিয়া থাকে । বোধ হয় এই অগন্মিহ ও তুম্মিহ শব্দ দক্ষিণাঞ্চলীয়দিগের দ্রুত কথন শক্তিতে আরও অপভ্রষ্ট হইয়। আস্ত ও তুম্ভ আকার ধারণ করিয়াছে । এক্ষণে উত্তরাঞ্চলে শিক্ষার সঙ্গে সঙ্গে নব্য সম্প্রদায়দিগের মধ্যে ঐ সমস্ত শব্দ পরিত্যক্ত হইয়া আসিতেছে ; শিক্ষিত সম্প্রদায়ের মধ্যে এখন কেহই অণর আমিহ প্রভৃতির প্রয়োগ করেন না । বৃদ্ধ বিষয়ি-লোকদিগের মুখে অদ্যপি ঐরূপ শব্দ শুনা যায় । ফলতঃ যাহা বিশুদ্ধ বাঙ্গালীর স্থান নহে তাছাতে, অর্থাৎ পূর্ব ও উত্তর প্রদেশ মধ্যে এবং বিশুদ্ধ বাঙ্গালী ভাষা স্থানের অনেক অশিক্ষিত লোক দিগের ও মধ্যে, পুৰুষ প্রয়োগ বিষয়ে নানা পরিবর্তন দেখা যায় । সুবর্ণরেখার দক্ষিণে অম্মদর্থে মে, মু, মুই, মতে ইত্যাদি শব্দ প্রযুক্ত হয় । এই শব্দ গুলিই আবার সুবর্ণরেখার উত্তরে প্রায় সমস্ত বাঙ্গাল। প্রদেশে ইতর লোকেরণ ঠিক ব্যবহার করিয়া থাকে, এবং বাঙ্গালা পদ্যেতেও ঐ গুলি ব্যবহৃত হয়। আম্ভেমানে, তুন্তেমানে ও সেমানে ইত্যাদি শব্দগুলি কেবল মানে শব্দ ষোগেই দক্ষিণে বহুবচন-বাচী হইয়া থাকে । মানে শব্দ ষে বহুবচন বোধক হয় ও দক্ষিণেই এক্ষণ বাঙ্গালার