পাতা:ঋতু-উৎসব - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১১৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ঋতু-উৎসব Σ Σύ . সব কুঁড়ি মোর ফুটে ওঠে। তোমার হাসির ইসারাতে। দখিন হাওয়া দিশাহারা আমার ফুলের গন্ধে মাতে । শুভ্ৰ, তুমি ক’রলে বিলোল আমার প্রাণে রঙের হিলোল, মৰ্ম্মরিত মৰ্ম্ম অামার জড়ায় তোমার হাসির জালে ৷ রাজা է: সব তো বুঝলুম। জাকাশ থেকে চাদ দেখুচি পৃথিবীর হৃদয়কে দোল লাগিয়েছে। কিন্তু ওঁকে পৃথিবীতে নামিয়ে এনে কষে দোল ন দিতে পারলে তো জবাব দেওয়া হয় না। তার কি করলে ? কবি । তার তো ব্যবস্থা হয়েচে মহারাজ। আমাদের নদীর ঢেউ আছে তো, সেদিকে চেয়ে দেখ না। চাদ টলোমলো । নদী কে দেবে চাদ তোমায় দোলা ? আপন আলোর স্বপন মাঝে বিভোল-ভোলা ॥ কেবল তোমার চোখের চাওয়ায় দোলা দিলে হাওয়ায় হাওয়ায় বনে বনে দোল জাগালো ঐ চাহনি তুফান-তোলা ।