পাতা:ঋতু-উৎসব - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ঋতু-উৎসব 〉R - নটরাজ । বাকি আছে অকারণ উৎকণ্ঠা। কালিদাস বলেন, মেঘ দেখলে স্বর্থী মানুষও আনমনা হয়ে যায়। এইবার সেই যে “অন্যথাবৃত্তি চেতঃ”, সেই যে পথ-চেয়ে-থাকা আনমনা, তারই গান হবে। নাট্যাচাৰ্য্য, ধরে হে,— পূব হাওয়াতে দেয় দোলা আজ মরি মরি। হৃদয়-নদীর কূলে কুলে জাগে লহরী। পথ চেয়ে তাই একলা ঘাটে বিনা কাজে সময় কাটে, পাল তুলে ঐ আসে তোমার সুরেরই তরী। ব্যথা আমার কুল মানে না বাধা মানে না, পরাণ অামার ঘুম জানে না জাগা জানে না। মিলবে যে আজ অকূল পানে, তোমার গানে আমার গানে, ভেসে যাবে রসের বাণে আজ বিভাবরী। নটরাজ । . বিরহীর বেদন রূপ ধীরে দাড়ালে, ঘন বর্ষার মেঘ আর ছায়া দিয়ে গড় সজল রূপ। অশান্ত বাতাসে ওর সুর পাওয়া গেলো কিন্তু ওর বাণীটি আছে, তোমার কণ্ঠে মধুরিকা। অশ্রুভরা বেদনা দিকে দিকে জাগে । আজি শ্যামল মেঘের মাঝে বাজে কার কামনা ৷ চলিছে ছুটিয়া অশাস্ত বায়,