পাতা:ঋতু-উৎসব - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


১৩ শেষ বর্ষণ ক্ৰন্দন কা’র তার গানে ধ্বনিছে, করে কে সে বিরহী বিফল সাধনা ৷ রাজা । আর নয় নটরাজ, বিরহের পালাটাই বড় বেশী হয়ে উঠলো, ওজন ঠিক থাকৃচে না । নটরাজ । মহারাজ, রসের ওজন আয়তনে নয়। সমস্ত গাছ একদিকে, একটি ফুল একদিকে, তবু ওজন ঠিক থাকে। অসীম অন্ধকার একদিকে, একটি তারা একদিকে, তাতেও ওজনের ভুল হয় না । ভেবে দেখুন, এ সংসারে বিরহের সরোবর চারিদিকে ছলছল করচে, মিলনপদ্মটি তারই বুকের একটি দুলৰ্ভ ধন । রাজ-কবি । তাই না হয় হোলে। কিন্তু অশ্রু বাম্পের কুয়াশ ঘনিয়ে দিয়ে সেই পদ্মটিকে একেবারে লুকিয়ে ফেললে ত চলবে না। নটরাজ । মিলনের আয়োজনও আছে। খুব বড় মিলন, অবনীর সঙ্গে গগনের । নাট্যাচাৰ্য্য একবার শুনিয়ে দাও ত । ধরণীর গগনের মিলনের ছন্দে বাদল বাতাস মাতে মালতীর গন্ধে ॥ উৎসব সভা মাঝে শ্রাবণের বীণা বাজে, শিহরে শু্যামল মাটি প্রাণের আনন্দে ॥