পাতা:ঋতু-উৎসব - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২০২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ঋতু-উৎসব २०8 (বাউলের প্রবেশ ) এই যে আমাদের বাউল। আমাদের এ কোথায় এনেচে, এখানে সমস্ত পথিকজগতের নিশ্বাস আমাদের গায়ে লাগচে—সমস্ত তারাগুলোর! আমরা খেলাচ্ছলে বেরিয়েছিলুম, কিন্তু খেলাটা যে কি তা ভুলেই গেছি। আমরা তাকেই ধরতে বেরিয়েছিলুম পৃথিবীর মধ্যে যে বুড়ে । রাস্তার সবাই বল্লে সে ভয়ঙ্কর। সে কেবলমাত্র একটা মুণ্ডু, একটা হা, যৌবনের চাদকে গিলে খাবার জন্তেই তার একমাত্র লোভ। কিন্তু ভয় ভেঙে গেছে। মনের ভিতর ব’লচে সে যদি আমাকে চায় তবে আমিও বসে থাকবে না। ফুল যাচ্চে, পাতা যাচ্চে, নদীর জল যাচ্চে—তা’র পিছন পিছন আমিও যাবো । ও ভাই বাউল, তোমার একতারাতে একটা সুর লাগাও ! রাত কতো হলো কে জানে ? হয় তো বা ভোর হ’য়ে এলো । বাউলের গান সবাই যারে সব দিতেছে তা’র কাছে সব দিয়ে ফেলি। ক’বার আগে চা’বার আগে আপনি আমায় দেবো মেলি। নেবার বেলা হ’লেম ঋণী, ভিড় ক’রেছি, ভয় করিনি, এখনো ভয় করবো নারে, দেবার খেলা এবার খেলি । প্রভাত তারি সোনা নিয়ে । বেরিয়ে পড়ে নেচে কুঁদে ।