পাতা:ঋতু-উৎসব - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৪৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


3S) শারদোৎসব মংলব করেছ? আমি তত বড় গর্দভ নই। আচ্ছ, তুই কী করতে পারিস বল দেখি । উপনন্দ আমি চিত্রবিচিত্ৰ ক’রে পুথি নকল করতে পারি। তোমার অন্ন আমি চাইনে । আমি নিজে উপার্জন ক’রে যা পারি খাব—তোমার ঋণও শোধ করব | লক্ষেশ্বর আমাদের বীণকারটিও যেমন নিৰ্ব্বোধ ছিল ছেলেটাকেও দেখচি ঠিক তেমনি করেই বানিয়ে গেছে । হতভাগা ছোড়াটা পরের দায় ঘাড়ে নিয়েই মরবে। এক একজনের ঐ রকম মরাই স্বভাব।—আচ্ছ বেশ, মাসের ঠিক তিন তারিখের মধ্যেই নিয়মমত টাকা দিতে হবে । নইলে— i উপনন্দ নইলে আবার কি ! আমাকে ভয় দেখাচ্চ মিছে । আমার কী আছে যে তুমি আমার কিছু করবে ? আমি আমার প্রভুকে স্মরণ ক’রে ইচ্ছা ক’রেই তোমার কাছে বন্ধন স্বীকার করেছি। আমাকে ভয় দেখিয়ে না বলচি ! লক্ষেশ্বর না না ভয় দেখাব না। তুমি লক্ষ্মীছেলে, সোনার চাদ ছেলে। টাকাটা ঠিক মতো দিয়ে বাবা, নইলে আমার ঘরে দেবতা আছে তার ভোগ কমিয়ে দিতে হবে—সেটাতে তোমারই পাপ হবে । (উপনন্দের প্রস্থান ) ঐ যে, আমার ছেলেটা এখানে ঘুরে ঘুরে বেড়াচ্ছে। আমি কোনখানে টাকা পুতে রাখি ও নিশ্চয়ই সেই খোজে ফেরে। ওদেরই ভয়েই তো আমাকে এক সুরঙ্গ হ’তে আর এক সুরঙ্গে টাকা বদল ক’রে বেড়াতে হয়। ধনপতি, এখানে কেন রে! তোর মংলবটা কী বল্ দেখি !