পাতা:ঋতু-উৎসব - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ঋতু-উৎসব 8 নটরাজ । কাটা ধানের সঙ্গে সঙ্গে ক্ষেতটাকে তো কেউ ধরে আনে না । কাব্য লিখেই কবি খালাস, তার পরে জগতে তার মত অদরকারী আর কিছু নেই। "আখের রসটা বেরিয়ে গেলে বাকি যা থাকে তাকে ঘরে রাখা চলে না । তাই সে পালিয়েছে। রাজা । পরিহাস বলে ঠেক্‌চে। একটু সোজা ভাষায় বলে। পালালে৷ কেন ? নটরাজ । পাছে মহারাজ ব’লে বসেন, ভাব, অর্থ, স্বর, তান, লয়, কিছুই বোঝা যাচ্চে না সেই ভয়ে। লোকটা বড় ভীতু। রাজ-কবি । এ তে বড় কৌতুক' পাজিতে দেখা গেল তিথিটা পূর্ণিমা, এদিকে চাদ মেরেছেন দৌড়, পাছে কেউ বলে বসে তার আলো ঝাপূসা। রাজা | তোমাদের কবিশেখরের নাম শুনেই মধুকপত্তনের রাজার কাছ থেকে তার গানের দলকে আনিয়ে নিলেম, আর তিনি পালালেন ? নটরাজ । ক্ষতি হবে না, গানগুলো মৃদ্ধ পালান নি। অস্তস্থৰ্য্য নিজে লুকিয়েছেন কিন্তু মেঘে মেঘে রং ছড়িয়ে আছে। রাজকবি । তুমি বুঝি সেই মেঘ ? কিন্তু তোমাকে দেখাচ্চে বড় সাদা। নটরাজ । ভয় নেই, এই সাদার ভিতর থেকেই ক্রমে ক্রমে রং খুলতে থাকবে ।