পাতা:এপিক্‌টেটসের উপদেশ - জ্যোতিরিন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৭১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।

কথা নয় কাজ।

৬১


লাভ করেন, পৃথিবী সমুদ্র দেখিয়া যাহারা উল্লসিত হয়েন, তাঁহারা একলাও নহেন, অসহায়ও নহেন, নিরুপায়ও নহেন।

 —“কিন্তু আমাকে এক্‌লা দেখিয়া যদি কেহ আমাকে হত্যা করে”?

 —নির্ব্বোধ! তোমাকে হত্যা করিতে পারে না, তোমার অপদার্থ শরীরকেই হত্যা করিতে পারে।

 ৩। তুমি একটি ক্ষুদ্র আত্মা—শরীর গ্রহণ করিয়াছ মাত্র।

 ৪। তবে তুমি আর এক্‌লা কেমন করিয়া?—তোমার কিসের অভাব? তবে কেন আমরা আপনাকে শিশু অপেক্ষাও অধম করিয়া ফেলি? শিশুরা একলা থাকিলে কি করে? তাহারা ঝিনুক লইয়া, ধূলা-বালি লইয়া ঘর তৈরি করে—আবার ভাঙ্গিয়া ফেলে—আবার তৈরি করে; এইরূপ তাহাদের খেলার আর অন্ত নাই। আর, তুমি চলিয়া গেলে আমি কিনা আপনাকে একলা ভাবিয়া কাঁদিতে বসিব? আমার কি কোন ঝিনুক নাই?—ধূলা-বালি নাই? “কিন্তু শিশুরা নির্ব্বোধ বলিয়াই এইরূপ কার্য্য করে”। আর তুমি জ্ঞানী বলিয়াই আপনাকে অসুখী কর, কেমন কি না? এ তোমার কিরূপ জ্ঞান বল দেখি?

কথা নয়—কাজ।

 ১। আপনাকে তত্ত্বজ্ঞানী বলিয়া কখন ঘোষণা করিও না; তত্ত্বজ্ঞানের কথা ইতরসাধারণের নিকট বড় একটা বলিও না; তত্ত্বজ্ঞানের যা উপদেশ—তাহা তুমি কার্য্যা পরিণত কর। যেমন মনে কর—কোন ভোজের সময়, কিরূপ আহার করা কর্ত্তব্য সে বিষয়ে বক্তৃতা না দিয়া, যেরূপ আহার করা কর্ত্তব্য, সেইরূপ যদি তুমি নিজে