পাতা:এলিজিবেথ.pdf/১৪৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

* 8. о এলিজবেথ। যত্ন পুৰ্ব্বক পরম শক্তি প্রকাশ করিতে এবং পাপীদিগের সহিত শোক সঙ্কীৰ্ত্তন করিতে আরম্ভ করিলেন। তৎকালে তাপিতহাদয় এলিজিবেথ আবৃত বদনে ও মৌনাবলম্বনে এমনি ভাবে তাহাদের পশ্চাৎ পশ্চাৎ যাইতে লাগিলেন, যেন তিনিই সাক্ষাৎ শোকের মূৰ্ত্তি। ফলে মৃত ব্যক্তির জন্য তাহার হৃদয়ে যাদৃশ ভাবের উদয় হইয়াছিল, উপস্থিত জনগণের কাহার ও তেমনটি হয় নাই । শব গৰ্ত্তমধ্যে নিহিত হইলে পর, পাপার। তাহার উপরি বিধি পুৰ্ব্বক কএক মুষ্টি মৃত্তিক নিক্ষেপ করিয়া তাহ সম্পূর্ণ রূপে সমাহিত করিল। যিনি নিরন্তর পরের হিত ও অভীষ্ট সাধনে ব্রতী ছিলেন । এবং যিনি এক দিবস ও অনর্থক ক্ষেপ করা সহ্য করিতে পারিতেন না, সেই মহাত্মাকে দেখিতে পাওয়৷ এই পৰ্য্যন্তই অবসান হইল। যেমন বৃক্ষাদির বীজ সকল সৰ্ব্বত্রগামী বায়ুদ্ধার পরিচালিত হইয়৷ নানা স্তানে ব্যাপ্ত হয়, এবং ভূমিকে প্রচুরশস্যশালিনী করিয়া উৰ্বর করিতে থাকে, তেমনি সেই মহাত্মা মহাশয় ভূমণ্ডলের অৰ্দ্ধেকের অধিকাংশ ভ্রমণ করিয়া সেই সকল স্থানের লোকদিগের হৃদয়ক্ষেত্রে সত্য ও জ্ঞানের বীজ সকল বপন করিয়াছিলেন। অবশেষে কালসহকারে তাহাকে এমনি ভাবে লোকলীলা সম্বরণ করিতে হইল যে সেই মহোপকৃত ব্যক্তিদিগের কেহই তাহ অবগত হইতে পারিল না। তাহার ন্যায় প্রশংসনীয় গুণশালী ও বিজাতীয় যশস্বী ভূমণ্ডলে প্রায় সচরাচর দেখিতে পাওয়া যায় না। ফলে তিনি পরোপকার করিয়া যে প্রকার যশ লাভ করিয়াছিলেন, তাহ অতি বড় দিগ্বিজয়ী রাজা ভিন্ন অন্য ব্যক্তিতে দেখিতে পাইবার সম্ভাবনা নাই। হায়! ঐহিক সুখ সম্পত্তি ও । ঐশ্বৰ্য্য ভোগ, সকলই অনিত্য ! মানব জাতির মান, সঙ্কুম, সমস্তই বৃথা ! যাহা হউক, পরম করুণাকর পরমেশ্বর সেই