পাতা:এলিজিবেথ.pdf/২৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

多卤 এলিজিবেন্ধ । উদয় হইত, তেমনি তাছা মনেতেই সম্বরণ করিৰার চেষ্টা করিতেন। পাছে অন্য কেহ তাহ জানিতে পারে এই আশঙ্কায় সেই সময়ে প্রতিজ্ঞ করিতেন যাবৎ তিনি পিত। মাতার নিকটহইতে পৃথক ন হইবেন তাবৎ তাহ কদাচ কাহার নিকট প্রকাশ করিবেন না। এলিজিবেথ মনে মনে এই রূপ স্থির করিলেন, যে পিতা ও মাতার মায়াজাল ছেদ করিয়া বাহির হইতে না পারিলে আর এ বিষয়ের কোন উপায় হইতে পারিবেক না। অনন্তর তিনি সেই সন্ততিবৎসল জনক ও জননীকে পরিত্যাগ করিয়া, রুশিয়াধিনাথের নিকট তাহণদের ক্ষমা প্রার্থন করিবার জন্য, সেন্টপিটসবগ নগরে যাইতে মনস্থ করিলেন। এলিজিবেথ এত অল্প বয়সে কিছু নিতান্ত নিৰ্ভয় ছিলেন, এমত নহে, তথাপি তাহার এই প্রকার সাহসিক ইচ্ছা, এবং এমনি দুঃসাধ্য অস্কৃত কাৰ্য সমাধা করিতে প্রবৃত্তি হইয়াছিল। তিনি মনে মনে বিলক্ষণ বুঝিতে পারিয়াছিলেন যে, এই বৃহৎ কাৰ্য্যে প্রবৃত্ত হইতে গেলে অনেক ব্যাঘাত ঘটিবার সম্ভাবনা, এমন কি তাহ হইতে উত্তীর্ণ হওয়াও বড় সহজ ব্যাপার নহে। তথাপি তাহার ইচ্ছ। এমত প্রবল হইয়াছিল ও সাহস এত দূর পর্যন্ত বাড়িয়াছিল, এবং পরমেশ্বরে এমনি একান্ত বিশ্বাস জন্মিয়াছিল যে তিনি নিশ্চয় বুঝিতে পারিলেন এ কৰ্ম্মে প্রবৃত্ত ছইলে যাবতীয় প্রতিবন্ধককে এককালে পরাভব করিতে সমর্থ হুইবেন। - এই রূপে ক্রমে ক্রমে তাহার সেন্টপিটসবগে যাওয়াই সম্পূর্ণরূপে মত হইল। কিন্তু তিনি কোন দেশের কিছুই অবগত ছিলেন না, এজন্য তাহার মনে আপাততঃ ভয় হইতে লাগিলু। তিনি আপনাদের কুঢ়ীরের নিকটের পথ । ঘাটই দেখিয়াছিলেন তাহাই জানিতেন, তদ্ব্যতীত সেই