পাতা:এলিজিবেথ.pdf/৩৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

२. ७ এলিজিবেথ। । ধরপারহইতে উত্তর দিতেছেন। ইহাতে তিনি আনন্দিত হইয়া অতি দ্রুত পদে কুটারাভিমুখে গমন করিতে লাগিলেন। - _ ওখানে স্পৃিঙ্গর এলিজিবেথকে ক্রোড়ে লইবার জন্য একেবারে বাহুদ্বয় প্রসারিত করিয়া রাখিয়াছেন । এলিজিবেথ উপস্থিত হইবামাত্র অমনি ক্রোড়ে লইয়। বার বার মুখচুম্বন করিতে লাগিলেন । এবং যে কারণে তাহাদিগকে অন্য পথ দিয়া আসিতে হইয়াছিল তাহ আদ্যোপান্ত বিবরণ করিয়া, ঈশ্বরেছায় যে, সকলের পুনৰ্ব্বার মিলন হইল, সেই সুখেই অপি নাদিগকে সুখী করিয়া মানিতে লাগিলেন । এলিজিবেথের পশ্চাৎ পশ্চাৎ যে যুবক মহাশয় অাসিতেছিলেন, তাহ। তিনি এত ক্ষণ পর্য্যন্ত জানিতে পারেন নাই । স্পৃিঙ্গর তাছাকে বিলক্ষণ চিনিতেন। দেখিবামাত্রই অতি সম্মানপুৰ্ব্বক জিজ্ঞাসা করিলেন, “ স্মোলফ মহাশয় ! আপনি যে এমন সময়ে এ দিকে আসিয়াছেন ? আপনার আসিতে এত বিলম্ব হইল কারণ কি ?” স্পৃিঙ্গরের মুখে * স্মেলফ’ এই কথা শুনিবামাত্র এলিজিবেথ ও তাহার মাতা “ইনিই কি আপনকার সেই প্রাণদাতা স্মোলফ মহাশয়” এই কথা বলিতে বলিতে তাহার চরণপ্রান্তে অবনত হইয়। পড়িলেন । তত বড় উপকারকের প্রতি কি প্রকার করিলে ও কি বলিলে প্রকৃতরূপ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ হুইবে, ফেডোরা তাহ। ভাবিয়। চিন্তিয়। কিছুই স্থির করিতে পারিলেন না। কেবল অনবরত বিগলিত নয়ন জলে তাহার চরণকেই অভিষিক্ত করিতে লাগিলেন । এলিজিবেথ সবিনয় সম্বোধন করিয়া কহিলেন, “ম্মোলফ মহাশয় । প্রায় তিন বৎসর হইল আপনি আমার পিতাকে প্রাণ দান দিয়াছিলেন। আমরা তদবধিই পরমেশ্বরের নিকট আপনকার মঙ্গল প্রার্থনা করিয়া থাকি। এই কথা