পাতা:ঐতিহাসিক চিত্র (প্রথম বর্ষ) - নিখিলনাথ রায়.pdf/২১৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


রাণী দুর্গাবতী। r २०> প্ৰবৃত্ত হয়। গাজিখমুরের পুত্র ও আদালাই এর ভগিনীপতি ইব্রাহিম কোন স্বাধীন রাজ্য স্থাপনে প্ৰয়াসী হন । তিনি পান্নারাজ রামচন্দ্ৰকে পরাজয় করিয়া তাহা অধিকারের ইচ্ছা করিয়াছিলেন । রামচন্দ্ৰ তাহার বশ্যতা স্বীকার করিলে তিনি একেবারে উক্ত রাজ্য আত্মসাৎ করিবার প্ৰয়াস পান নাই । এই সময়ে বাজবাহাদুরের রাইসিনস্থিত মৈয়ান নামক আফগানগণ র্তাহার অধীনতা ছেদনের ইচ্ছা! ਵਿ। ইব্রাহিমকে আহবান করিয়া পাঠায় । ইব্রাহিম রাণী দুৰ্গাবতীর সাহায্য প্রার্থনা করেন । রাণী তাহার সাহায্যের জন্য সসৈন্যে অগ্রসর হইলে, বাজবাহাদুর র্তাহার নিকট দুত প্রেরণ করিয়া অনুনয় বিনয়ের দ্বারা প্ৰতিনিবৃত্ত হইতে অনুরোধ করেন । রাণী বাজবাহাদুরের অনুরোধে প্ৰতিনিবৃত্ত হন। ইব্রাহিম নিরুপায় হইয়া অবশেষে উড়িষ্যার অভিমুখে গমন করেন। ইহার কিছুকাল পরে আদলাই এর দুর্বল হস্ত হইতে ভারতের রাজদণ্ড স্বলিত হইয়া পড়িল । হুমায়ুন পুনৰ্ব্বার দিল্লীর সিংহাসনে উপবেশন করিলেন। অবশেষে পাণিপথ ক্ষেত্রে পাঠানের শেষ চেষ্টা ক্ষীণালোক বিদুতের ন্যায় দিগন্তক্ৰোড়ে মিলাইয়া গেল । দিল্লীর রাজছত্ৰ সাহানসাহা আকবর সাহের মস্তকে ধূ ত হইল। সিংহাসনে আরোহণ করিয়া আকবর সাহ ভারতের চরিদিকে দৃষ্টি নিক্ষেপ করিলেন । দেখিলেন, তখনও পর্যন্ত ভারতে হিন্দু ও পাঠানের ক্ষমতা পীরে ধীরে ক্রীড়া করিতেছে । এই ক্ষমতার বিলোপ সাধন না করিতে পারিলে ভারতে যে মোগল রাজত্ব বদ্ধমূল হইবে না, সঁহা সুচতুর আকবরসাহের বুঝিতে বিলম্ব হইল না। তাহার অব্যাহত শক্তি তদীয় অভিভাবক বৈরামখার দ্বারা সঙ্কুচিত হইয়াছিল, তিনি প্রথমেই সেই Iাধার বিনাশসাধন করিলেন। পরে ক্ৰমে ক্ৰমে পাঠান ও হিন্দুর শক্তিসঙ্কোচির জন্য প্ৰয়াসী হইয়া উঠেন। তিনি পাঠানদিগের ক্ষমতালোপের জন্য ইচ্ছুক ইলেন বটে, কিন্তু হিন্দুদিগকে একেবারে বিনাশ করিতে ইচ্ছা করিলেন না । চাহাঁদের ক্ষমুতার সঙ্কোচ করিয়া তাহাদিগকে নিজ সাম্রাজ্যের সহিত অঙ্গীভূত করিতে চেষ্টা করিতে লাগিলেন। রাজপুতানা প্ৰভৃতি স্থানে, এইরূপ উপায়