পাতা:ঐতিহাসিক চিত্র (প্রথম বর্ষ) - নিখিলনাথ রায়.pdf/২৪৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


জগৎশেঠ ROS দুতে চাদ তাহার বিরুদ্ধে অভু্যথিত হইলেন, এবং র্যাহারা পূর্ব হইতে র্তাহার বিরুদ্ধে এক ষড়যন্ত্রের আয়োজন করিতেছিলেন, তঁহাদের সহিত যোপদানে প্ৰবৃত্ত হইলেন ।

  • আমরা দেখাইয়াছি যে কি কারণে সরফরাজ ও জগৎশেঠের মধ্যে বিবাদ উপস্থিত হয়, তাহার বিশেষ কোন প্ৰমাণ পাওয়া যায় না । ইংরাজ ঐতিহাসিকগণের বর্ণিত বিবরণ যে ভিত্তিহীন তাহাও প্রদর্শিত হইয়াছে। কিন্তু রহস্তের বিষয় এই যে, উক্ত ঘটনাকে অন্য আকারে চিত্ৰিত করিয়া সরফরাজের কলঙ্ক রাশি আমাদের বঙ্গকবি সিরাজের স্কন্ধে চাপাইয়াছেন । “পলাশীর যুদ্ধে” কবি জগৎশেঠ মহাতপার্টাদের মুখ হইতে এইরূপ উক্তি বাহির করিয়াছেন :-

“বেগমের বেশে পাপী পশি অন্তঃপুরে নিরমল কুল মম-প্রতিভা যাহার মধ্যাহ্ন ভাস্কর সম, ভূভারত যুড়ে প্ৰজ্বলিত,-সেই কুলে দুষ্ট দুরাচার করিয়াছে কলঙ্কের কালিম সঞ্চার ।” এখানে ‘পাপী” ও “দুষ্ট দুরাচার” সিরাজকে বলা হইয়াছে, অবশ্য সকলে বুঝিতে পারিতেছেন যে, ইংরাজ ঐতিহাসিকগণের লিখিত সরফরাজ ও জগৎশেঠ কাহিনীই এই ভাবে চিত্রিত করা হইয়াছে। সরফরাজের স্থলে সিরাজ আসিয়া দাড়াইয়াছেন, আর তঁহার বালিকা জগৎশেঠবধুকে প্রাসাদে আনায়নের পরিবৰ্ত্তে তিনি বেগমের বেশ ধারণ করিয়া জগৎশেঠের অন্তঃপুরে প্ৰবেশ করিয়া তঁহার প্রদীপ্ত বংশে কলঙ্ক-কালিমা লেপন করিতেছেন। তবে মহাতপচাদের বধু বা কুল উভয়ত্র একই আছে বলিয়া আমরা ইহার রহস্য বুঝিতে পারিতেছি। কি ক্ষণে সিরাজউদ্দৌলা জন্মগ্রহণ করিয়াছিলেন। ইংরাজী, ফারসী বা বাঙ্গালা ইতিহাসে এমন কি বাঙ্গাল কাব্যেও তাঁহার নিষ্কৃতি নাই। মুর্শিদাবাদের নবাবদিগের মধ্যে যাহার যে কোন দোষ ছিল, তাহাই সিরাজের স্বন্ধে আসিয়া পড়িয়াছে, ইহা যে যারপর নাই পরিতাপের বিষয় সে বিষয়ে সন্দেহ নাই। “পলাশীর যুদ্ধ” কাব্য। কাব্যের সাত খুন মাপ সত্য বটে, কিন্তু ঐতিহাসিক কাব্যে ঐতিহাসিক ঘটনা-সম্বন্ধে কয় খুন মাপ সঙ্গত তাহাও বিবেচ্য।