পাতা:ঐতিহাসিক চিত্র (প্রথম বর্ষ) - নিখিলনাথ রায়.pdf/৪২৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


so डिशनिक फ़िल्म । লন। এতৎ প্রদেশে বহুস্থানে বহু প্ৰাচীন দিঘী পুষ্করিনী, কোচের দিবী, DDLYt SBSDSDDBB D BDBDD DD DBDDB BBBTB BBSY DBBD DBDD ঐ সকল স্মৃতি সেই অণ্ডজ জাতিয় ভূঞা শাসন কৰ্ত্তাদিগেরই কীৰ্ত্তি কল্প । খৃষ্টীয় ষোড়শ শতাব্দীর অবসানের পর অণ্ডজ জাতিয় দিগের অভু্যুত্থানের বিষয় আর অবগত হওয়া হায় না। ঈশা খাঁর শাসন প্রতিষ্ঠার পূর্ব পৰ্য্যন্ত এই সকল অণ্ডজ জাতির প্রভুত্ব এতদ্দেশে সৰ্ব্বত্র বিরাজিত ছিল। এই সকলের মধ্যে যে সকল কোচ ও হাজং রাজগণ ঈশা খার শাসন প্ৰতিষ্ঠায় পুর্ব পৰ্য্যন্ত রাজ্য শাসন করিয়া গিয়াছিল। তাহদের মধ্যে নেত্ৰ কোণার অন্তৰ্গত মদন কোচ, সদরের অন্তৰ্গত বোকাই নগরের বোকাই কোচ ও মধুপুরের বনের পুৱা বাজার নাম সমধিক প্ৰসিদ্ধ ; মধুপুরের হুরবাজারের বিশাল ভগ্ন কীৰ্ত্তি কলাপ অদাপিও বৰ্ত্তমান রক্রিয়াছে। মদনপুর ও বুকাইনগর মদন কোচ ও বোকা কোচের নামের স্মৃতি চিকু বহন করিতেছে। ঈশা খার শাসন প্ৰতিষ্ঠার সঙ্গে সঙ্গে দেশ হইতে এই সকল আদিম অধিবাসী দিগের প্রভুত্ব লোপ *হইয়া গিয়া মুসলমানের প্রাধান্য পরিলক্ষিত হইতে লাগিল । ঈশা খাঁর মৃত্যুর পর তাহার সুবিশাল প্রদেশ এক একটী ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র মুসলমান জমিদারীতে পরিবত্তিত হইতে লাগিল। দিল্লী হইতে আগত ঈশা খার পরিষদ আসাহেব এবং মজলিশ বংশীয়েরা প্ৰথমতঃ অনেক জমিদারী অধিকার করিয়া লইলেন তৎপর ক্রমে অন্যান্যেরাও নিজ নিজ সুবিধা মত প্ৰভুত্ব বিস্তার করিতে আরম্ভ করেন । ঈশা খার অত্যুদয়ের পূর্ব হইতেই ভাওয়ালের বিস্তৃত অরন্য ভূমি গাজি দিগের হন্তে শাসিত হইতেছিল। ঈশা খার পরাক্রম বিস্তৃত হইলে গাজিগণ নিস্তেজ হইয়া যান ও ঈশা খার অধীনতা স্বীকার করেন । পুনরায় ঈশা খার পতনের পর সপ্তদশ শতাব্দীর প্রথম ভাগেই এই, গাজি বংশধরেরা এই বিস্তৃত অরণ্যের দুই দিগ অধিকার করিয়া লন উত্তরে করৈ বাড়ীর দক্ষিণ ভাগ দশ কাঞ্ছনীয়া বাজু বৰ্ত্তমান সেরপুর পরগণা ও দক্ষিণে ভাওয়াল বাজু ঈশা