পাতা:ঐতিহাসিক চিত্র (প্রথম বর্ষ) - নিখিলনাথ রায়.pdf/৫৫৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।
৫৩৫
চচ ও আরবীয়দিগের সিন্ধু অধিকার।

কুণ্ডে প্রাণত্যাগ করেন। কাসিম দুর্গস্থ প্রায় ৬০০০ সৈনিকের প্রাণ বধ করেন ও অপর দাস দাসী যাহারা ছিল, তাহাদিগকে সপুত্ত্র পরিবার শৃঙ্খলাবদ্ধ করিয়া লইয়া যান। দাহিরের পুত্ত্র জয়সিয় (জয়সিংহ) পলায়ন করিয়া জয়ধুর ও পরে তথা হইতে কাশ্মীর রাজের নিকট আশ্রয় গ্রহণ করিলেন। কিছু দিন পরে জয়সিয় কুরজ রাজ দারোহর রায়ের নিকট গমন করেন। সেখানে দারোহর রায়ের ভগ্নী জানকী জয়সিয়ের প্রতি আকৃষ্ট হইয়া রাত্রিকালে তাঁহার শয়ন কক্ষে প্রবেশ করেন এবং জয়সিয় কর্ত্তৃক প্রত্যাখ্যাত হইয়া ক্রোধে প্রাতঃকালে স্বীয় ভ্রাতার নিকট জয়সিয় তাঁহার সতীত্ব নাশের চেষ্টা করিয়াছেন এরূপ মিথ্যা অভিযোগ করেন। দারোহর রায় জয়সিয়কে আহারের নিমন্ত্রণ করিয়া তাঁহাকে হত্যা করিবেন এরূপ ষড়যন্ত্র করেন; কিন্তু একটী ভৃত্যের সাহায্যে এবিষয় জানিতে পারিয়া জয়সিয় তথা হইতে পলায়ন করেন ও জালন্ধরের সীমান্তে কসর নামক স্থানে যাইয়া অবস্থান করিতে থাকেন।

 এদিকে কাসিম দাহিরের দুর্গ অধিকার করিয়া কোন ব্রাহ্মণকে তথায় পাইলেন না। কিন্তু পরদিবস তাঁহার সৈন্যগণ প্রায় এক সহস্র ব্রাহ্মণকে আনিয়া উপস্থিত করিল। তাহাদের মধ্যে অনেককে ইসলামধর্ম্মে দীক্ষিত করাইলেন এবং যাহারা ইসলামধর্ম্ম গ্রহণ করিল না, তাহদের উপর অধিক করের ব্যবস্থা করিলেন। এই সময়ে একজন স্ত্রীলোক দাহিরের অপর স্ত্রী লাদিকে আনিয়া উপস্থিত করিল। কাসিম স্ত্রীলোকটীর নিকট লাদিকে ক্রয় করিয়া নিজে বিবাহ করিলেন। এবং লাদির দুই অবিবাহিত কন্যাকে খালিফের নিকট প্রেরণ করিলেন। এইরূপে সিন্ধুদেশে আরবীয়দিগের অধিকার হইল।

 দাহিরের কন্যাদ্বয়কে খালিফ সম্মুখে আনয়ন করাইয়া উহাদিগের নাম জিজ্ঞাসা করিলেন। উহারা উত্তর করিল সূর্য্যাদেও ও পরমলদেও। কনিষ্ঠাকে তিনি সম্মুখ হইতে লইয়া যাইতে বলিলেন এবং অপরটীর রূপে মুগ্ধ হইয়া তাহাকে নিকটে ডাকিলেন। সে উত্তর করিল যে, “আমরা আপনার নিকট প্রেরিত হইবার পূর্ব্বে সেনাপতি মহম্মদ কাসিমের নিকট তিন দিবস ছিলাম।