পাতা:ঐতিহাসিক চিত্র - পঞ্চম পর্য্যায়.pdf/২২০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ভারতে ১৭৬১ খৃষটাব্দ । ১৭৬১ খৃষ্টাব্দ ভারতে এক নূতন দাগের প্রবর্তন করিয়াছিল । মোগল সম্রাটগণের সমুদ্ধির শেষ রশ্মি তপন পশ্চিম গগনে মান রক্তিমাভা ধারণ করিয়াছিল। তখন আকবর, জাহাঙ্গার, শাহ জাহানের অসাধারণ ধারত্ব, ন্যায়পরায়ণতা, প্ৰজাশীলতা প্ৰভৃতি গুণাবলী ভারত বাসীর স্মৃতিপথ ই ই৩ে একে একে লুপ্ত হইয়া যাই৩ে ছিল। ভারতের প্রতে। কি সুবা তখন স্বাধীন হইবার বৃথা চেষ্টা, গুহ কলহে শাঁও ও সৌ ০ার্দ ক্ষয় করিতে বদ্ধপরিকর চাইয়া উঠিয়ছিল। অদূরদর্শী সুবেদারগণ স্ব স্ব আধিপত্য 'বিস্তারের জন্য বিবাদ বিসংবাদকে চিরসহচর করিয়াছিলেন, আর চঞ্চল জয় শ্ৰী, কখন একজনের সহিত কখন অন্য জনের সঠিত এক্রীড়া করিতেছিলেন । বুঝি, তখন "ভারতের গৰ্ব্বিত শিরে বিধাতার অভিসম্পাতি ধষিত হইতেছিল । ভবিষ্যের ছায়ার অন্তরালে কি আছে জানিতে পারলে, মানবজীবনের ই; গুহাস ভিন্নরূপে লিখিত হ চিত সন্দেহ নাই । ঔরঙ্গজেব। যদি বুঝিতে পারিতেন, তাহার অত্যাচারপূর্ণ কাৰ্য্যাবলীর ভবিষ্যতে কি বিষময় ফল ফলিবে, তাহা হইলে তিনি, তিনি কেন, মনুষ্য মাত্ৰেষ্ট ঐ রূপ ধৰ্ম্মদ্বেষী DD DBkS J BBBD DDBBDDSSSS S LDDLB BDBBDS KLLDD BDDS SK DLDLLLG তরল জল প্ৰবাগের ও শক্তি নিহত হয় না, বরং সঞ্চি ৩ হইয়া শত গুণে বদ্ধিত হইয়া উঠে ; শারীরিক বিস্ফোটকের বিষাক্ত বস্তু নিৰ্গত করিয়া দিয়া তাহাকে আরাম করাই যুক্তিযুক্ত, নিৰ্গম বন্ধ করিয়া সৰ্ব্বাঙ্গে সে বিষ ইড়াইয়া দেওয়া প্ৰবীণ চিকিৎসকের কার্য্য নহে । ঔরঙ্গজেব মনে করিয়াছিলেন যে, শিখ বা মারহাট বিপুল ক্ষমতাশালী তক্ততাউসের অধীশ্বর দিল্লীর সম্রাটের নিকট সামান্য কাকের দল বিশেষ, অতিক্ষুদ্র