পাতা:কবিকঙ্কণ-চণ্ডী (প্রথম ভাগ) - চারুচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/৩১৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


\e 8 কবিকঙ্কণ-চণ্ডী যন্ত স্মৃত্যা কথামাত্ৰং মাহাত্ম্য্যসহিতং স্ক্রিয়াঃ । প্ৰেত্যেহ সতীত্বং বৈ প্ৰাপ্ন বস্ত্যন্যজন্মনি৷ -कालिका भूलi०, २४ अक्षाग्र । ৭৬ পৃষ্ঠার টীকা ১৯০ পৃষ্ট দ্রষ্টব্য। কাশীখণ্ড ১৮ অধ্যায়ে অরুন্ধতী-প্ৰশংসা দ্রষ্টব্য। বন্দে নিশাপতি-চন্দ্ৰ দক্ষপ্ৰজাপতির কন্যা সাতাশ নক্ষত্ৰকে বিবাহ করেন, কিন্তু তিনি বিশেষ করিয়া রোহিণীতে আসক্ত -কালিকাপুরাণ ২০ অধ্যায়। সৰ্ব্বস্বপি চ পত্নীয়ু এক প্ৰিয়তম যথা । রোহিণী নাম যা প্রোক্তা তথান্য ন কদাচন | --শিবপুরাণ জ্ঞানসংহিতা ৪৫ অধ্যায় ৬-৭ । স্কন্দপুরাণ ব্ৰহ্মখণ্ডের উত্তরখণ্ড ১৩৬৫ ; প্ৰভাসখণ্ড ১৯ অধ্যায় দ্রষ্টব্য। এক কন্যার প্রতি পক্ষপাতের জন্য দক্ষ ক্রুদ্ধ হইয়া চন্দ্ৰকে শাপ দেন যে তিনি ক্ষয়-রোগ-পীড়িত হইবেন । ক্ষয়-রোগ-পীড়িত হইয়াও রোহিণীর প্রতি চন্দ্রের অনুরাগ হ্রাস হয় নাই। অর্থাৎ, “চন্দ্রপথে যে কয়টি তারা চন্দ্ৰ দ্বারা আচ্ছাদিত হইতে পারে তাহদের মধ্যে রোহিণী সৰ্ব্বাপেক্ষা উজ্জ্বল ও প্ৰধান ; রোহিণীতে যত পুনঃ পুন: চন্দ্ৰ-সমাগম দৃষ্ট হয় অন্য তারায় তেমন হয় না ।”-আমাদের জ্যোতিষ ও জ্যোতিষী । এই জ্যোতিষিক ব্যাপার পুরাণে গল্পে পরিণত হইয়াছে। পৌরাণিক গল্পের মূল বীজ কিন্তু অতি প্ৰাচীন। বাজসনেয়ী সংহিতায় এক গন্ধৰ্ব্ব ১৭ নক্ষত্রের সঙ্গে সঙ্গত হইয়াছেন। অথৰ্ব্ব বেদে সেই গন্ধৰ্ব্ব বিশেষ-ভাবে রোহিণীতে অনুরক্ত দেখা যায় ; এই গন্ধর্বের স্থানে চন্দ্র যখন নক্ষত্রপতি হইলেন, তখন রোহিণীতে অনুরাগ তাতেই আরোপিত হইল। তৈত্তিরীয় সংহিতায় চন্দ্রের রোহিণীর প্রতি অনুরাগের বর্ণনা আছে । চন্দ্রের সঙ্গে রোহিণীর প্রীতিকে চন্দ্ররোহিণী-যোগ বলে । বরবধূর মিলন সেইরূপ হোক এই কামনায় বিবাহের রাত্রে রোহিণীপতি চন্দ্রের অৰ্চনা করা হয়। উপরাগান্তে শশিনঃ সমুপগত রোহিণীযোগম। —অভিজ্ঞানশকুন্তলম, १भ 52 । মণিহম্ম্যপুষ্ঠে সুদর্শনশ্চন্দ্ৰঃ, তত্ৰ সন্নিহিতেন দেবেন। প্ৰতিপালনীয়ঃ, যাবাচ। চন্দ্ররোহিণীযোগঃ ॥-বিক্রমোর্বিশী ৩য় অঙ্ক । অগ্নি পূজি-গাৰ্হাপত্য অগ্নি গৃহস্থের গৃহস্থালির দেবতা, সেইজন্য বিবাঙ্ক দ্বারা গৃহস্থাশ্রমে প্রবেশের পূর্বে অগ্নি পুজনীয়। অগ্নি বিবাহের সাক্ষী ও সর্বদেবস্বরূপ।