পাতা:কবিকঙ্কণ-চণ্ডী (প্রথম ভাগ) - চারুচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/৩৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কবিকঙ্কণ-চণ্ডী ܟܠR সূৰ্য্যপূজাব যে ক্রম তাছান্তে “মিহিবায়” এই একটি মন্ত্র ব্যবহৃত হইয়াছে। ‘মিহিব' সুয্যেব্য একটি নাম । সুৰ্য্যের ‘মিহিব।’ নাম বেদে দেখিতে পাওয়া যায় না, অমবকোষে পাওযা যায়। সাব্য ভাণ্ডাবকবি বলেন, মিহিব-শব্দ পাবস্যভাষাবি “মিহব’ শব্দেব সংস্কৃত আকাব। পাবস্য “মিহ’ব’ আবেস্তাব মিথ-শব্দে ব অপভ্রংশ। মিথ-শব্দটি মিত্ৰ-শব্দেৰ অপভ্ৰংশ। কণিষ্ক-কর্তৃক প্রচলিত মুদায় একটি মূৰ্ত্তি দেখিতে পাওয়া যায়। এই মূৰ্ত্তিব পাশ্বে ‘মীবো।” এইরূপ লিখিত আছে। সাব ভাণ্ডারকাব বলেন, এই মীবো শব্দ মিহিব-শব্দেবি বাচক । মিহিব-উপাসনা প্ৰথমে পাবস্যদেশে উদ্ভূত হয় ; পাবে এসিয়া মাঠনিব পৰ্য্যস্ত প্ৰসাবিত হয, এমন কি পাবে বোম পৰ্য্যন্ত প্ৰসাবিত হইয়াছিল। এই ধৰ্ম্মাবলম্বীগণেব উৎসাহে এই ধায় পূৰ্বদিকে ও প্ৰসাব লাভ কবিয়াছিল। কণিন্ধেব মুদাষ মিহিব মূৰ্ত্তি তাহাবই নিদর্শন। সুতবাং কুষাণবংশীয় কণিক্ষেব বাজাকালে এই ধৰ্ম্মমত ভাবতে প্ৰবেশ কবিযাছিল এবং মূলতানেব মন্দিব ও প্ৰায় সেই সময়ে নিৰ্ম্মিত হইষাছিল। (S। It G Bhanda kat, Vau১ula 0 */, ), 16 1 ) সুৰ্য্যোপাসনা বৈদিক কাল হইতে ভাবতে প্ৰচলিত ছিল , কাজেই মগ গণেব আচাব যাহাই থাকুক না কেন, সূর্য্য-পূজাম ক্ৰমে ভাবতবর্ষেব প্ৰাচীন সুৰ্য্যোপাসনাব প্ৰণালী প্ৰাধান্যালাত কবিয়াছিল । সৰ্য্যপূজাপদ্ধতিতে দেখিতে পাই-পূজক আচমন কবিবাব পাব শ্বাসবোধেব নিমিত্ত বস্ব দাবা নাসিক আবৃত ও কেশেবা জল অপনয়ন-হেতু মস্তক ( বস্ব দ্বাবা ) আচ্ছাদি ও কবিয়া সূৰ্য্যোব পুজা কবিবে। কোনও স্থানে আছে, “মস্তক নাসিকা ও মুখ যত্নপূর্বক ভাল কবিয়া আবৃত করিয়া সূৰ্য্যোব পূজা কবিবে। এই আববণ শিথিল কবিলে না।” মস্তক নাসিকা ও মাখ আবৃত কবিয়া পূজা অন্য দেবতা-সম্বন্ধে লক্ষিত হয না । সুতবাং এই আচাব মগগণ কতৃক সূৰ্য্য-পূজায় ভাবতে প্ৰচলিত হইয়াছিল বলিয়া বোধ হয়। পাবস্তদেশীয় পুবোহিতগণেব যে এইরূপ আচাব ছিল, তাহাব নিদশন পাওয়া যায়। ব্যাগোজিন তাহাব মিডিয়া-নামক গ্রন্থে একস্থলে লিখিয়াছেন -“বায়ু, জল, পৃথিবী ও অগ্নি—এই ভূত-সকল অতি পবিত্ৰ, অন্য কোনো অপবিত্র পদার্থেব স” সর্গে ইহাদিগকে অপবিত্র করা উচিত নয়। এই কাবণে পাবস্য-পুবোহিত অগ্নিপবিচৰ্য্যাকালে মুখের উপব একখণ্ড বস্ত্র ধারণ কবিয়া থাকে , ইহাব উদ্দেশ্য এই যে এইরূপ কবি/ ল তাহার নিঃশ্বাস অতিপবিত্র ভূত অগ্নিকে অপবিত্র কবিতে পরিবে না।” এই গ্রন্থেব অন্যত্র লিখিত আছে, অথবন অর্থাৎ অগ্নিপুরোহিত যখন অগ্নিব সম্মুখে দীর্ঘ শ্বেতবর্ণ পোষাকে আবৃত হইয়া ও মুখ আবৃত কবিয়া দণ্ডায়মান থাকে, তখন তাহাব দৃশ্য মহিমান্বিত বলিয়া বোধ হয়। ব্যাগোজিন-লিখিত পাবাসী-পুবোহিতগণেব বর্ণনা দেখিয়া মনে হয়, মগগণ সূৰ্য্যপূজার সময় পাবাসী-পুবোহিতগণের ন্যায় মস্তক নাসিক ও মুখ বস্ত্র দ্বাবা আবৃত