পাতা:কলিকাতা সেকালের ও একালের.djvu/১০৩৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পঞ্চবিংশ অধ্যায়। . نهاية ক্লাইভ এই সময়ে চন্দ্রনগর আক্রমণের উদ্যোগ করিতেছিলেন। নবাব এই সংবাদে বিরক্ত হইয়া, নন্দকুমারকে ফরাসীদিগের সাহায্যের জষ্ঠ প্রস্তুত থাকিতে আদেশ করিলেন এবং তাহার সাহায্যের জন্য রাজা ছয়ভরামকে সসৈন্তে প্রেরণ করিলেন। এদিকে ইংরাজের এই ব্যবস্থায় অত্যন্ত উদ্বিগ্ন হইয়া পড়িলেন। তাহারা পরামর্শ করিয়া কলিকাত-নিবাসী কাল इकूौं মলের ভগিনীপতি আমীরচাদকে (উমিচাঁদ) হগলীতে পাঠাইসেন। তিনি ইংরাজদিগের পরামর্শ মত নন্দকুমারকে নবাবের আদেশের বিরুদ্ধে, ফরাসীদিগের বিপক্ষে দণ্ডায়মান হইতে অহুরোধ করিলেন। উমিচাঁদের নিকট সিরাজের বিরুদ্ধে ওমরাহগণের ষড়যন্ত্রের বৃত্তাস্ত সবিশেষ অবগত হইয়া, নন্দকুমার ইংরাজের পক্ষাবলম্বন করিতে স্বীকৃত হইলেন। অনেকে অনুমান করেন, নন্দকুমারের এই আনুগত্য স্বীকারের অন্তরালে একটা গভীর উদেশ্ব প্রচ্ছন্নভাবে নিহিত ছিল। তিনি তৎকালীন উদীয়মান ইংরাজ-শক্তির বিপক্ষে প্রকাগুভাবে দণ্ডায়মান না হইয়া কৌশলে তাহার দমনের সঙ্কল্প করিয়াছিলেন। অতঃপর নম্বকুমারের কৌশলে, ছল্লভরাম মুর্শিদাবাদে ফিরিয়া গেলেন। ইংরাজগণ চন্দননগর আক্রমণ করিয়া তাহা জয় করিয়া লইলেন। একে সিরাজকে সিংহাসনচ্যুত করিবার জন্য এই সময়ে যড়যন্ত্ৰ চলিতেছিল, তাহার উপর চন্দননগর জয় করাতে, ইংরাজের শক্তি যথেষ্ট পরিবন্ধিত হইল। নবাব এই সময়ে নিজের ভ্রম বুঝিতে পারিয়া, নন্দকুমারকে পদচ্যুত করিয়া হুগলীতে অঙ্ক একজন ফৌজদার নিযুক্ত করিলেন। এই কাৰ্য্য কারণ সম্বন্ধে ক্ষতিগ্রস্ত হইয়া, নন্দকুমার পরিশেষে নিজের ভ্রম বুঝতে পারিয়াছিলেন। পলাশীর যুদ্ধের পর, মীরজাফর বাঙ্গালার সিংহাসনে আরোহণ করিলে নন্দকুমার ক্লাইভের দেওয়ান নিযুক্ত হন। ইহার প্রধান কারণ, প্তাহার সহায়তায় ইংরাজগণের চন্দননগর জয়। ইহা ব্যতীত রাজনীতিক্ষেত্রে তাহার যেরূপ প্রতিভার পরিচয় পাওয়া যাইতেছিল, তাহাও ইহার অন্যতম কারণ হইতে পারে। যাহা হউক, লর্ড ক্লাইভের দেওয়ানরূপে তিনি অসামান্য কাৰ্য্যদক্ষতা ও বুদ্ধিমত্তা প্রদর্শন করিয়া ইংরাজগণের প্রিয়পাত্র হইয়া উঠিয়াছিলেন। র্তাহার প্রতিপত্তিও এতদূর বৰ্দ্ধিত হইয়াছিল যে, এই সময়ে লোকে তাহাকে “কালা-কর্ণেল” নামে অভিহিত করিত। N : ক্লাইভ র্তাহ’র আন্তরিক প্রীতির নিদর্শন-স্বরূপ, নবাবকে অনুরোধ করি, হুগলী হিজলী প্রভৃতি স্থানের দেওয়ানী, নন্দকুমারকে প্রদান