পাতা:কলিকাতা সেকালের ও একালের.djvu/১৬৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


চতুর্থ অধ্যায়। ১২৩ এই সন্তোষরায়ের দান-শক্তির জষ্ঠ, তাহার নাম চারিদিকে পরিব্যাপ্ত হয়। যে কেহ প্রার্থী হউক না কেম—তাহার নিকট কোন প্রার্থনা লইয়া গেলে, নিরাশ হইত না । কস্তাদায়, পিতৃদায়, মাতৃদায়, গৃহনিৰ্মাণ, চতুষ্পাঠী-স্থাপন, ইত্যাদি নানা বিষয়ের প্রার্থী, প্রতিদিন তাহার নিকট উপস্থিত হইত। তিনি তাহাদের সকলকেই সস্তুষ্ট করিয়া বিদায় করিতেন বলিয়া—“সন্তোষ” নামে পরিচিত হন। নবাবী আমলের সেহাএবং নানাবিধ প্রাচীন দানপত্র ও দলীলে, তিনি "সন্তোষরায়” এই নামেই পরিচিত। তাহার, প্রকৃত নাম “শিবদেব” বলিলে লোকে তাহীকে চিনিতে পারিত না। কেশবরায়ের পর, তাহার পুত্ৰগণের মধ্যে এই সন্তোষরায়ই—বিষয়কশ্বের তত্ত্বাবধারণ করিতেন। ১৭৪১ খ্ৰীষ্টাব্দে, এদেশে বগীর-হাঙ্গামা উপস্থিত হয়। ইহা সেকালের বাঙ্গলার একটা স্মরণীয় ঘটনা। লুণ্ঠন-পরায়ণ, মহারাষ্ট্রীয় দক্ষাবর্গের উৎপাতে, শান্তিময় বঙ্গদেশ বড়ই ব্যতিব্যস্ত হইয়া উঠিয়াছিল। এই বর্গীর জালায়, লুন্ঠনের ভয়ে, লোকে গ্রাম নগর ত্যাগ করিয়া নানাস্থানে পলাইতে লাগিল। গ্রাম জনশূন্ত, ক্ষেত্ৰ শস্যশূন্ত—সমৃদ্ধিসম্পন্ন প্রজার সর্বস্ব লুষ্ঠিত। বড় বড় জমীদারগণও এই সময়ে ব্যতিব্যস্ত হইয়া উঠিলেন। নবাব আলিবদাঁ খী-চৌথ দানে স্বীকৃত হওয়ায়—বৰ্গীরা শান্তভাব ধারণ করে। বগীরা ত শাস্ত হইল। কিন্তু এ “চৌথ” আদায় হইবার উপায় কই ? চৌথ দূরে থাক, চাষবাস না হওয়ার জন্ত, বাঙ্গালার তৎকালীন জমীদারেরা প্রজার নিকট হইতে কিছুই আদায় করিতে পারিলেন না । কিন্তু তাহ বলিয়া-বাঙ্গলার নবাব ছাড়িবেন কেন ? তিনি জমীদারদিগকে পীড়ন নবাব কর্তৃক বন্দী হন । আমরা পূর্কে বলিয়াছি—যে সন্তোধরায় প্রচুর আহার করিতে পারিতেন। মূর্শিদাবাদের নবাব-কারাগারে, অন্ধভুক্ত অবস্থায় থাকিয়—এবং নিজের অভালমত অহারাদি না পাইয়া, উহার বড়ই কষ্ট হইতেছিল। একদিন তিনি, নবাবের এক ছাগরক্ষকের হস্ত হইতে, একটা ছাগল কাড়িয়া লন। নিজের পাচকের দ্বার, সেটা পাক BBBBS BBB BBBDD BBB BBB BBBS BB BBBB BBBB BBBTTDD কৌতুহল বিষ্ট হইয়া, সন্তোষরায়ের সহিত সাক্ষাৎ করিয়া, এ বিষয়ের তথ্যানুসন্ধান করেন । সন্তোষরায়ের কথায় বিশ্বাস না হওয়ায়,নবাব তাহাকে পরদিন আর একটা ছাগ প্রদান করেন । একটা সমগ্র ছাগমাংস, রায় মহাশয়কে, বিনাকষ্ট্রে ভক্ষণ করিতে দেখিয়া—নবাব বলিলেন—“আজি তোমার এই অস্তুত জাহার দৃষ্টি বড়ই সস্তুষ্ট হইয়াছি। যে লোক নিজে গুরূপ অতিভোজন করে, সে কখনও আমার রাজস্ব দিতে পরিবে না । অতএব আমি তোমার নিকট প্রাপ্য-পাজন। মকুব করিয়া, এবার তোমার মুক্তি দিলাম। আর ভবিষ্যতে, যাঁহাতে এই আহারের দায়ে gBB BBS B BDSTBB BBB BBB BBB BBB BB BBBS BBDDDD gggDD BBB BBBS BBBBBBBBBB BBBBB SBBBggSDDDS DDD BDD বৈষ্ণু বৃহ্মেত্তের প্রাপ্ত হন । - *