পাতা:কলিকাতা সেকালের ও একালের.djvu/২৫৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ミ>b" কলিকাতা সেকালের ও একালের । চুচুড়াতে সে সময়ে ডচ-দিগের প্রবল আধিপত্য। ডচ ফ্যাক্টরী શઃ যেন সমুদ্রোপকুলস্থ ক্ষুদ্র নগরীর ন্যায় সদা হাস্যময়ী। সন্ধ্যার সময় তিনি হুগলী বোলঘাটে অবতীর্ণ হন । ইহার পর, তিনি হুগলি হইতে দুই মা৯ দূরবর্তী ইষ্ট ইণ্ডিয়া কোম্পানীর একটা উদ্যানবাটীতে উপস্থিত হবেন। এই উষ্ঠানবাটীতে বিশ্রামাস্তে তিনি কাশিমবাজারের দিকে অগ্রসর হন। পাচদিন পরে কাশিমবাজারে উপস্থিত হইয়া,মাষ্টার সাহেব ইংরাজ বুী মধ্যে প্রবেশ করেন। কাশিমবাজার তখন বাণিজ্যৈশ্বর্য্যে হুগলীর সমকক্ষ । মাষ্টার সেই সময়ের কাশিমবাজারের ষে বৃত্তাস্ত লিথিয়াছেন, তাহা এই— “কাশিমবাজার একটা ক্ষুদ্র সহর। দুই মাইল ইহার বিস্তৃতি। রাস্তাঃ অতি কম চওড়া। বিশেষতঃ যেখানে বাজার আছে, সে স্থানের পথ এন্ত অপ্রশস্ত, যে একখানি ক্ষুদ্র পাল কীও সুবিধার সহিত যাতায়াত করিতে পারে না। অধিকাংশ গৃহই মৃত্তিকণ-নিৰ্ম্মিত । দেয়াল মেঝে সবই মাটর। সকল বাড়ীর পিছনে বা পাশ্বে, দুই চারিটী ক্ষুদ্র খাত আছে। এই জনা এ স্থানটী বড়ই অস্বাস্থ্যকর। মুক্তিক অতি কোমল ও উর্বর। কাঠ বড়ই দুৰ্ম্ম ল্য। কাশিমবাজারের চারিদিকের ভূমিখণ্ডে তুতগাছের চাষ। এই তুতগাছের কচি পাতাই গুটাপোকার খাদ্য। এখানে যে রেশম উৎপ হয়, তাহা হরিদ্রাবর্ণের। কিন্তু কাশিমবাজারের রেশম ব্যবসায়ীরা, কলার বাসনার ছাই দ্বারা, এই রেশমকে কাচিয়া পরিষ্কার করে। তাহ প্যালেষ্টাইনের শ্রেষ্ঠ রেশম অপেক্ষা কোন অংশেই হীন নহে ।”* মাষ্টার সাহেব সম্ভবতঃ ২৫শে সেপ্টেম্বর কাশিমবাজারে উপস্থিত হন। কাশিমবাজার ফ্যাক্টারিতে পৌঁছিয়াই, তিনি মুক্মুদাবাদে মোগল শাসন কর্ভার নিকট র্তাহার পৌছান-সংবাদ প্রেরণ করেন এবং কাশিমবাজারে তিনি ছয় সপ্তাহের উপর কাল অবস্থান করিয়া, কোম্পানীর ফ্যাক্টারীর সম্বন্ধে নানাবিধ সুবন্দোবস্ত করেন । পূর্বেই বলিয়াছি, কোম্পানীর কুঠার, ইংরাজ কৰ্ম্মচারীদের মধ্যে একটা আন্তরিক সদ্ভাব ও বন্ধুত্বের ভাব খুব কম ছিল। এজন্য র্তাহার নিকট অনেক মামলা উপস্থিত হইল। ছোট খাট গোলমালগুলির মীমাংসা করিয়া, তিনি রন্থ পোন্ধারের ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করিলেন। এ ব্যাপারটা বিলাতের কর্তাদে ভচদিগের এই বরাহ-মাংস জারণের কারখানা ছিল বলিয়াই সম্ভবতঃ ইহা বরাহনগর " BBBBBB BBBBB BBS BB DDBBS DDDD DDDD SS AASAA S বরাহনগর দর্শন করেন । {.

  • Tavernier's Voyages. Vol. 11.