পাতা:কলিকাতা সেকালের ও একালের.djvu/২৭৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অষ্টম অধ্যায়। ২৩৯ রমেশ্বর দাস এজন্য বড়ই ব্যতিব্যস্ত হইয়া উঠিল। এতদৰ্থে সে গুপ্তভাবে ' কতকগুলি লাঠিয়াল ও বন্দুকধারী সেন সংগ্ৰহ করিয়া, নিশাকালে ইংরাজ পককে নদীর উপরেই আক্রমণ করে। ইংরাজদের দুইখানি বোট তাহার হস্তগত হয়। ইংরাজপক্ষীয়গণ এই বিপদ উপস্থিত দেখিয়া প্রথমে ভাবিলেন, gয়ত ইহা---ডাকাতি। কিন্তু ঘটনার অবস্থা তদন্তে বোধ হইল, ইহা যে সে ডাকণতের কাজ নহে । নিশ্চয়ই পরমেশ্বর দাস এ ব্যাপারের মধ্যে আছে । হেজেস, যদি সাহসের সহিত বন্দুক চালাইতে পারিতেন, তাহ চষ্টলে হয়ত প্রকৃত ডাকাতদের পথ দেখিতে হইত। কিন্তু হেজেসের মনে একটা দৃঢসংস্কার জন্মিল, ইঙ্গ প্রকৃত ডাকাতি নহে, পরমেশ্বর দাসের বাহাজানি মাত্র। পরমেশ্বর দাস, মোগল-বাদসাহের কৰ্ম্মচারী। তাহার দলের লোকজনকে নিহত করিলে পরে মহা বিপদে পড়িতে হইবে, এই সব ভাবিয়া চিন্তিয়, হেজেস এই হাঙ্গামার পর ভাগীরথীবক্ষ ত্যাগ করিয়া মুন্দরবনের পথ ধরিয়া ঢাকা গমনে সঙ্কল্প করিলেন । ২০এ অক্টোবর হেজেস, জলঙ্গী ও গঙ্গারসঙ্গম স্থানের অনতিদূরে উপস্থিত হন । কালকাপুরে পৌছিলে, জব চাণক তাহার সহিত সাক্ষাৎ করেন। চার্ণকের সঙ্গিত উপস্থিত কৰ্ত্তব্য সম্বন্ধে তাহার অনেক কথাবাৰ্ত্তা ও পরামর্শ হয় । ইতার পাচদিন পরে, অর্থাৎ ২৫এ অক্টোবর, হেজেস, ঢাকায় উপস্থিত হন। তখন নবাব সায়েস্তা-খ। ঢাকার লালবাগে থাকিতেন। এই স্থানেই তাছার দরবারাদি হইতে। লালবাগ ইষ্টক নিৰ্ম্মিত দুর্গদ্বারা সুরক্ষিত ছিল।* হেজেস ঢাকায় উপনীত হইয়া, দেড়মাস কাল নবাবের দর্শনাশায় অপেক্ষা করিলেন । দেড়মাসের পর, তিনি সায়েস্তা-খার অনুগ্রহ লাভ করেন। হেজেস, সায়েস্তা-খার নিকট যে সমস্ত আবেদন উপস্থিত করিয়াছিলেন, নবাব তাহাতে সম্পূর্ণ সন্মতি দান করিলেন। এত কষ্ট করিয়া ঢাকায় আসিয়া, হেজেস, নবাব সায়েস্তা-খার নিকট তাহার প্রার্থিত দাবিগুলি পাইলেন বটে, কিন্তু কাৰ্য্যক্ষেত্রে তাহার কোন

  • সায়েন্তা-খার এ দুর্গের চিহ্ন এখন কিছুই নাই। নদীও অনেকদূরে সরিয়৷ আসিয়াছে। এখন কেবল একটী পুরাতন ভগ্ন মসজীদ ও সায়েম্ভা-খণর কন্স পিয়ারেবিবির, স্বেত মৰ্ম্মরময় সমাধিস্তস্ত ভিন্ন, পুরাতনের চিহ্ন আর কিছুই দেখিতে পাওয়া যায় না।
  • আশা-সাফল্যে উৎফুল্প হইয়া, হেজেস, উfহার রোজনামচাঁর একস্থানে লিখিয়। *—"I bless God for this great success I have had, beyond all men's *pectations in my Voyage to Dacca,