পাতা:কলিকাতা সেকালের ও একালের.djvu/৩৮৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ত্রৈয়োদশ অধ্যায় নিহত রাজা কৃষ্ণরাম রায়ের পুত্র, জগতষ্ঠাম রায়, পৈত্রিক জমিদারী উত্তরাধিকার সুত্রে পুনরায় প্রাপ্ত হইলেন। মূলন বন্দোবস্ত অস্তে, খালসা এ জাইগীর-মহল সমূহের কর আদায় হইতে লাগিল। তযুল, আয়মা, আলতমূগা প্রভৃতি বিভিন্ন-শ্রেণীর জায়গীরদারগণ * আপন আপন মহলের ভার পুনঃপ্রাপ্ত হইলেন। সম্রাট ঔরঙ্গজেব তাহার পৌত্রের জীবন-রক্ষাকারী হামিদ থাকে, সমসের থা—উপাধি ও উচ্চ-মন্সব দিয়া, শ্ৰীহট্ট ও বান্দাশালের ফৌজদারের পদে নিযুক্ত করিলেন। যে সকল খাস-কৰ্ম্মচারী যুদ্ধকালে কাৰ্য্য পটুতা প্রদর্শন করিয়াছিলেন, তাহারাও আপন আপন পদ-মৰ্য্যাদা ও পার শিতানুসারে, যথাযোগ্যরূপে সন্মানিত হইয়া মন্সব প্রাপ্ত হুইলেন । সাহজাদা আজিমওশ্বান বৰ্দ্ধমানের দুর্গমধ্যে বাস করিতে লাগিলেন, এবং তথায় অট্টালিকার ভিত্তি-পত্তন করিলেন । র্তাহার বদ্ধমান-বাসের প্রতিরক্ষার জন্ত, তিনি বৰ্দ্ধমানে একটা জম-মসজেদ ও হুগলীতে সাহa বলিয়া একটা গঞ্জ বা বাজার প্রতিষ্ঠা করিলেন। লোকে এই বাজারকে সংগঞ্জ না বলিয়া, তাহার স্মৃতিরক্ষার্থে “আজিমগঞ্জ” বলিয়া উল্লেখ করিত। রাজস্ব সম্বন্ধে তিনি অনেক নৃতন বন্দোবস্ত কয়েন। সে সব কথা বিশদ আলোচনার স্থান আমাদের নাই। সাহজাদা রাজকাৰ্য্যেই অধিকাংশ সময় ক্ষেপণ করিতেন। অবসর সময়ে, সন্ত্রান্ত আমির ওমরাহগণের সহিত মিলিত হইয়া, হদিস মসনবি ও মৌলানারুমের কাব্যগ্রন্থ আলোচনা করিতেন। বিদ্বান, সদ্বংশজ ও কীৰ্ত্তিমান ব্যক্তিগণের উপর, তাহার অতিশয় শ্রদ্ধা ছিল। ধাৰ্ম্মিক ও সংসারবিরাগী সাধুগণকে তিনি অতি সম্মান করিতেন ও তাহীদের উপদেশ লইবার জন্য অতিশয় বাগ্র হইতেন । - বৰ্দ্ধমানে অবস্থানকালে,তিনি বায়েজিদ নামক জনৈক মুকী সাধু-ফকিরের মশের কথা শুনিয়া, তাহার সহিত সাক্ষণতাৰ্থে ব্যগ্র হন, এবং তাঙ্গকে ब्रांखপ্রাসাদে আনিবার জন্য র্তাহার পুত্রদ্বয়, সাহজাদা করিমউদিন ও ফ্রকুৰুশিয়ারকে তাহার আস্তানায় প্রেরণ করেন। রাজকুমারদ্বয়, স্বকীর বাসভবনে উপস্থিত হইলে, তিনি তাহাদিগকে “সেলাম-আলেকম্‌” বলিয়া অভিবাদন * রাজকাৰ্য্য জগু বেতনের পরিবর্ত্তে—সেকালে নিষ্কর-ভূমি দিবার ব্যবস্থা ছিল। এই উমর নাম তযুগ। এতদ্ভিন্ন কাৰ্য্যদক্ষতার পুরস্কার স্বরূপ অনেকে নিচয়-ভূমি পাইতেন। रैशाक७ उष्ट्रल रलिङ । विषॉन, शा*िक, मब्रिज, मन्नरश्रज प्रबदइोभद्ध दाखिनिभएक मिकद्र ভূমিদানের নিয়ম ছিল। এই ভূমির নাম আয়ম ও আলতযুগ। জাল তযুগী-ভূমি সম্বন্ধে ভউরাধিকার ও দান-বিক্রয়ের নিয়ম ছিল। (রিয়াজ-উস-সালাতিন-২২৪ পৃ: )