পাতা:কলিকাতা সেকালের ও একালের.djvu/৪৪৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পঞ্চদশ অধ্যায় । 8> う ভারতের ও বিদেশের যে যে স্থানে মুসলমান তীর্থ আছে, সে সকল স্থানেও প্তাহার উপহার পৌছিত। এখনও সাদুল্লাপুরে, সিরাজ-উদ্দিন সাহেবের পবিত্র সমাধি-গৃহে, নবাব মুরশীদকুলীর জাফর-খার প্রেরিত একখানি ছিন্ন কোরাণ দেখিতে পাওয়া যায়। এ কোরাণ, নবাব মুরশীদকুলীর স্বহস্ত লিখিত । “রিয়াজের” বর্ণনানুসারে জানা যায়, “র্তাহার সভায় সাৰ্দ্ধ দ্বিসহস্র উৎকৃষ্ট ও নিয়মিত কোরাণ-পাঠক নিযুক্ত ছিলেন। ইহার প্রত্যহ সমগ্র কোরাণ পাঠ ও র্তাহার স্বহস্ত-লিখিত, কোরাণ সংশোধন করিতেন। এই সমস্ত কোরাণ-পাঠকেরা, নবাবের রন্ধনশালা হইতে নিত্য আহাৰ্য্য প্রাপ্ত হইতেন । নবাব শাস্ত্রবেত্তা মৌলবী, মৌলানা ও সদ্বংশ জগত ব্যক্তিগণের সাহচৰ্য্য শ্রেয়স্কর বোধ করিতেন। নবাব, রবি অল আউল মাসের ১লা হইতে হজরত পয়গম্বরের ( মহম্মদ ) তিরোভাব দিন অর্থাৎ ১২ই তারিখ পর্য্যস্ত ধাৰ্ম্মিক, শাস্ত্রবেত্ত৷ ও দরিদ্রদিগকে সাদরে নিমন্থণ করিয়া আহার করাইতেন। তাহদের অতিরি শেষ না হওয়া পৰ্য্যস্ত, বিনীত ভাবে দণ্ডায়মান থাকিতেন કરે সময়ে প্রত্যহ মাহিনগর হইতে লালবাগ পৰ্য্যন্ত নদীর তট, অতি সুন্দর দ্বীপমালায় সুশোভিত হইত। তারার ন্যায় সমুজ্জল আলোক-মালায় মসজেদের খিলান, বেদী, বৃক্ষলতা, কোরাণের শ্লোক ইত্যাদি প্রদর্শিত তইত। নাজির আহম্মদ নামক একজন কৰ্ম্মচারি. এই কার্য্যের তত্ত্বাবধায়ক নিযুক্ত হইতেন । কথিত আছে, এজন্য তিনি আনুমানিক প্রায় এক লক্ষ মজুর নিযুক্ত করিতেন। সন্ধ্যা সমাগত হইলে, একটী তোপধ্বনি হইবামাত্র, সমস্ত প্রদীপ একবারে জলিয়া উঠিত। আর সমস্ত আলোক একবারে জলিয়া উঠায়, অপূৰ্ব্ব নেত্র-মোহকর সৌন্দর্ঘ্যের বিকাশ করিত। মুরশীদকুলার সময়ে, বেরা-নামক আলোক-দান পৰ্ব্বও এইরূপ মহোৎসবে নিৰ্ব্বাহিত হইত। এই সময়ে নানাবর্ণে রঞ্জিত কাগজের ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র তরণী, দীপমালায় সুশোভিত করিয়া, নদীবক্ষে ভাসাইয়া দেওয়া হইত।* 参

  • থাজা-খিজির নামক, এক পবিত্র স্থা মহাত্মার স্মরণার্থে এই আলোকদান পর্কোর অনুষ্ঠান হয়। খাজা-খিজির খৃষ্টানদের ইলিয়স। ঢাকার নবাব একরাম খাঁর আমলেও বাঙ্গালার মুসলমানগণের এই পৰ্ব্বানুষ্ঠানের প্রথম ঐতিহাসিক বিবরণ পাওয়া যায়। মুর্শিদাবাদে এই পৰ্ব্ব, পূর্বে বিশেষ সমারোহে সম্পন্ন হইত। অদ্যপি ভাদ মাসের শেষ বৃহস্পতিবারে, এই পৰ্ব্ব উপলক্ষে মুর্শিদাবাদে বিশেষ সমারোহ হইয়া থাকে। চতুর্দিক হইতে শলীবৃক্ষ ও বংশ সংগৃহীত হইয়া প্রকাও এক আলোকযান প্রস্তুত হয়। তাহার উপর