পাতা:কলিকাতা সেকালের ও একালের.djvu/৫১৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


8br\ల কলিকত| সেকালের ও একালের । . - 黨 জ্ঞাতিগণ-অৰ্থাৎ লক্ষ্মীনারায়ণ গোসাই, রঘুরাম গোসাই, নলকিশোর গোসাই, ঘনশ্বাম গোসাই, প্রভৃতিকেও এ ক্ষেত্রে আনান হয়। র্ত্যহাদের অন্ত দুইজন জ্ঞাতি, অভিরাম গোস্বামী ও রঘুনন্দন গোস্বামী, নবাব-দরবারে এই বিধবার সম্পত্তি সম্বন্ধে নালিশবন্দী হওয়াতেই, এই অনর্থ উপস্থিত হইয়াছে। আমরা গোসাই ঠাকুরদের নানারূপ প্রশ্ন করায়, তাহারা বলিলেন—“যত শীঘ্ৰ পারেন, তাহারা মুরশীদাবাদে গিয়া অভিরাম ও রঘুনন্দনের সহিত আপোসে এই বিষয়ের মীমাংসা করিয়া লইবেন । যদি এ মীমাংসা শেষ না হয়, তাহা হইলে বারাণসী, যন্ত্র, গোপাল ও বিষ্ণুদাস প্রভৃতি শেঠগণ, এই বিধবা ব্রাহ্মণ-ব্লমগীর জামিনস্বরূপ রছিলেন । যাহাতে সে অন্য কোথাও পলাইয়া না যায়, বা নবাবের হুকুম প্রাপ্তিমাত্রেই তাহাকে মুরশীদাবাদে উপস্থিত করা হয়, তজ্জন্ত র্তাহারা দায়ী রহিলেন।” উল্লিখিত ঘটনা হইতে এইটুকু প্রমাণ হয়, যে অভিরাম গোস্বামী প্রভৃতি দায়াদগণ, মৃত গোসায়ের পরিত্যক্ত সম্পত্তির অংশ না পাইয়া, নবাব দরবারে গিয়া জানায়, যে হরিরামের বিধবার প্রচুর ধন সম্পত্তি আছে, অথচ তাহার সন্তানাদি নাই । তাহদের নিকট এই গুপ্তসংবাদ পাইয়াই, নবাব মুরশীদকুলী খা, বিধবাকে তলব করেন। কারণ, সেকালের সন্তানহীন অবীরার সম্পত্তি, সরকারে বাজেয়াপ্ত হইত ও বিধবা জীবনাবধি খোরাক পোষাক পাইত। শেঠদিগের এই বিধবার হইয়া লড়িবার কারণ বোধ হয় মুক্ত গোসাই মকুর তাহাদের পুরোহিত বা গুরু ছিলেন । শেঠদিগের গোবিন্দজী ঠাকুর ও দেবালয় তখনকার কলিকাতার বিশেষ গণনীয় ব্যাপার। এই বিধবাকে পরিশেষে নবাব-দরবারে হাজির হইতে হইয়াছিল কি ন!— তাহা আমরা ঠিক বলিতে পারি না। কোম্পানীর নূতন দালাল হরিনাথ । সেকালে যাহারা ইষ্ট-ইণ্ডিয়া কোম্পানীর দালালী করিতেন, তাহারা বিশেষ,যোত্রপন্ন বা বড়মানুষ ছিলেন। কোম্পানীর পক্ষ হইতে মালামাল ক্রয়-বিক্রয় করাই তাহাদের কার্য্য ছিল , দালালের সামান্ত বেতন পাইতেন বটে, সেটা কেবল কোম্পানীর চাকর বলিয়া চিহ্নিত হইবার জন্য। কিন্তু ক্রয়-বিক্রন্থের দালালীতেই তাহদের উদরপূর্ণ হইত। উপযুক্ত লোক ভিন্ন—এই পদ পাইতেন না। কারণ আমরা কোম্পানীর সেরেস্তার কোনও মন্তব্য হইতে জানিতে পারি,—“আমাদের ভূতপুৰ্ব্ব দালাল রামকৃষ্ণ