পাতা:কলিকাতা সেকালের ও একালের.djvu/৮০৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


চতুৰ্ব্বিংশ অধ্যায়। १७१ তিনি কোন পার্থক্য দেখিতেন না। জনশ্রুতি এই তিনি নিতাগন aান করিতেন। অনেক হিন্দু দেবদেবীর মূৰ্ত্তি তিনি নিজ বাটতে সংগ্ৰহ করিয়াছিলেন । সাউথ পার্ক ষ্ট্রীটের সমাধিক্ষেত্রে আজও উহার সমাখিবৃত্ব বর্তমান। এ সমাধিস্তম্ভটা একটী প্রাচীন হিন্দু দেবমন্দিরের প্লাবশেষ । ইহার গাত্রে “ভগীরথ” “পৃথুিদেবী" প্রভৃতির খোদিত আকৃতি ও অনেক সাধুসন্ন্যাসীর মূৰ্ত্তি আছে। ফ্রিস্কল ষ্ট্রট। ইহা অাগে (১৭৮০ খ্ৰীঃ অঞ্চ ) বাশের জঙ্গল ছিল । রাত্রে লোকে এ ভীষণ জঙ্গল পার হইতে ভয় পাইত। ১৭৮৯ খৃঃ অবো, এখানে সাঠেবদের জন্য একটী ফ্রিস্তুল স্থাপিত হয়। এই স্কুল হইতেই এ পথের এইরূপ নামকরণ হইয়াছে। যেখানে এখন এই স্কুল গৃহটী বৰ্ত্তমান—বহুকাল পূৰ্ব্বে সেইস্থানে আর একটা বাড়ী ছিল। সেই বাড়ীতে স্বপ্রীমকোর্টের স্বলতম জজ, লিমেষ্টার সাহেব থাকিতেন। এই লিমেষ্টার, নন্দকুমারের মোকদ্দমার অন্ততম বিচারক । ইনিই নন্দকুমারকে জেলে পুরিবার আদেশ প্রদান করেন । এই রাস্তার ৩৯ নং বাড়ীতে, ইংলণ্ডের প্রসিদ্ধ উপন্যাসকার উইলিয়াম থাকারের জন্ম হয়। ইহঁর পিতা রিচ মণ্ড থ্যাকারে কোম্পানীর আমলে বোর্ড-অব-রেভেনিউর সেক্রেটারি ও চব্বিশ পরগণার কালেক্টার ছিলেন । আলিপুরে তিনি যে বাড়ীতে বাস করিতেন--সেই বড়াতেই হেষ্টিংসের কৌন্সিলের মেম্বর, স্যর ফিলিপ ফ্রান্সিস্ বাস করিতেন বলিয়া একটা জনপ্রবাদ আছে। আলিপুর জেলের প্রবেশের পথটা এখনও "থাকারে রোড” বলিয়া পরিচিত । মটস লেন । ঘটুস লেন—মিঃ মটের নামানুসারে চিহ্নিত হইয়াছিল। হেষ্টিংসের লিতি চিঠিপত্রে, এই মট সাহেবের নাম বহুবার উল্লিখিত হইয়াছে। মটু*াবে প্রথমে প্রাচীন কলিকাতার একজন স্বাধীনব্যবসায়ী ছিলেন । ১৭৬৬ ই অঙ্গে লর্ড ক্লাইভের আদেশে, তিনি উড়িষ্যায় মণিরথনি আবিষ্কার করিতে শন করেন । এতৎসম্বন্ধে তিনি একখানি কেতাবও লিখিয়াছিলেন । ষ্টারেণ হেষ্টিংসের প্রথম আমলে, তিনি বেনারসে থাকিতেন। তৎপরে খ্রিষ্ঠ আসেন। গবর্ণর হেষ্টিংস, প্রায়ই মট সাহেবের চুচূড়ার বাড়ীতে "ঞ্জিত হইতেন। তাহার গোপনীয় চিঠিপত্রের অনেকস্থলে—তিনি