পাতা:কলিকাতা সেকালের ও একালের.djvu/৯৬২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


సి:Ra কলিকাতা সেকালের ও.একালের । ভিক্টোরিয়ার স্বর্ণময়মূৰ্ত্তি নিৰ্ম্মিত হইলে, যেন আরও ভাল হইত। যাহা হউক, লর্ড কর্ষন প্রতিষ্ঠিত, ভিক্টোরিয়া-মেমোরিয়াল হল সম্পূর্ণ হইলে, ভারতেশ্বরী ভিক্টোরিয়ার আর একটা অক্ষয়কীৰ্ত্তি স্থাপিত হইবে। মন্তকে মুকুট, হন্তে । রাজদণ্ড ও সম্রাঙ্গীর বেশ-পরিহিত, এক গৌরবময়ী নারীমুৰ্বি এই ট্যাচুতে প্রকটিত। চিত্রের মিয়ভাগটা সবুজবর্ণ আইরিশ-মাৰ্ব্বেল মণ্ডিত। সিংহাসনের পৃষ্ঠদেশে, শিল্প, সাহিত্য ও সুবিচারের প্রস্ফুট মূৰ্ত্তি। নিয়ে একজন গুর্থী, সিপাহী বেশে ঢাল তরোয়াল হস্তে দণ্ডায়মান। মোটের উপর এই চিত্রটা ভাস্করের শিল্পকলার সুন্দর নিদর্শন। মহারাণীর রাজভক্ত প্রজাগণের অর্থসাহায্যে, এই মূৰ্ত্তি নিৰ্ম্মিত। র্তাহার ষষ্ঠি বৎসরব্যাপী রাজত্বকাল, স্মরণীয় করিবার জন্য, ইহা গঠিত হইয়াছিল। ভারতের ভূতপূৰ্ব্ব বড়লাট, লর্ড কৰ্ত্তন, মহারাণীর এই মূৰ্ত্তি বিশেষ সমারোহের সঙ্কিত উন্মোচন করেন। বর্তমানে এই মূৰ্ত্তিটি গড়ের মাঠে স্থাপিত থাকিলেও, ভবিষ্যতে ইহ ভিক্টোরিয়া-মেমোরিয়াল হলে স্থানান্তরিত হইবে। এই মূৰ্ত্তি ভিন্ন, মহারাণীয় আর একটা সুন্দর মৰ্ম্মর মূৰ্ত্তি এলিয়াটিক-মিউজিয়মের গৃহ মধ্যে স্থাপিত আছে। এই মূৰ্ত্তিটা বৰ্দ্ধমানাধিপতি স্বৰ্গীয় মহাতপচাদের প্রদত্ত। লর্ড রবার্টস । লর্ড রবার্টস, ১৮৮৫ খ্ৰীঃ অব্দের সেপ্টেম্বর হইতে ১৮৯৩ খ্ৰীঃ অন্ধের এপ্রিল পর্য্যস্ত, ভারত-সাম্রাজ্যের প্রধান-সেনাপতি ছিলেন। গবর্ণমেন্টের নিকট প্রাপ্ত, চৌদ্দটী পিত্তলের কামান গলাইয়া, তাহ। হইতে এই ষ্ট্যাচু নিৰ্ম্মিত হইয়াছে। কাবুল, কান্দাহার, দিল্লী, লক্ষে, জাগর, খোদাগঞ্জ, অম্বালা, আবিসিনিয়া ( ১৮৬৭ ), লুসাই, আফগানিস্থান ( ১৮২৮—১৮৪• ) পিওয়ার-কোটাল ; সুতীর-গৰ্ত্তন, চারাসিয়া, শেরপুর প্রভৃতি যুদ্ধক্ষেত্রের নাম এই ষ্ট্যাচুর গায়ে লিখিত। এই ষ্ট্যাচুর একদিকে “যুদ্ধ” ও অপরদিকে “জয়” এই দুইটা ঘটনা পিত্তলে খোদিত। যুদ্ধচিত্রের সম্মুখে শিখ, দক্ষিণে হস-আর্টিলারি, বামে হাইল্যাণ্ডার ও ওর্থী সৈন্য চিত্রিত আছে। মিৰেট্‌স নামক একজন ইংরাজ-ভাস্কর, এই পিত্তন প্রতিমা প্রস্তুত করেন। লর্ড রবার্টসের বীর-কীৰ্ত্তির পরিচর যেস্থানে forgos; oth fissos, wirtz fath I now bid farewell to the Army of this Country both British and Native się কয়েকটী কথা লেখা আছে ।