পাতা:কল্পদ্রুম তৃতীয় খণ্ড.djvu/৭৫৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ংস্কৃত লিপিকাল সম্বন্ধে মোক্ষমূলারের মত খণ্ডন ৭৪৭ তাহা জানিবার উপায় নাই। আবার দেখুন সকলে ৰলিয়া থাকেন, “ ব্ৰহ্মার বেদ ” । তবে কি কমলযোনি বেদের রচয়িত ? মহর্ষি পরাশর সে সন্দেহও নিরসন করিতেছেন। . তদীয় সংহিতায় छूठे शब्ल,“ন কশ্চিং বেদকর্তৃ চ বেদম্মৰ্ত্ত চতুৰ্ম্ম খঃ”। বেদের প্রণেতা কেহই নহেন, চতুৰ্ম্ম খ ব্ৰহ্মা বেদের স্মরণ কর্তা। অতএব দেখুন, পূৰ্ব্বাপর সকলেই বৈদমন্ত্র অভ্যাস করিয়া মাসিতেছেন কেবল তাহারই ভূরি প্রমাণ পাওয়া যাইতেছে । মহর্ষি বেদব্যাস দ্বাত্রিংশৎ লক্ষ অক্ষর বিশিষ্ট একলক্ষ শ্লোকাযুক বেদমন্ত্র সঙ্কলন করিয়া ব্রহ্মার নিয়োগায়ুসারে তাহাকে চারিভাগে বিভক্ত করেন । কিন্তু, কলির প্রাদুর্ভাবে’মনুষ্য ক্রমশঃ হীনবীৰ্য্য ও অল্পায়ুঃ হইয়া পড়িতেছেন। পূৰ্ব্বের ন্যায় কেহই চতুৰ্ব্বেৰ কণ্ঠস্থ করিতে পারেন না, অতএব বেদ রক্ষার উপায় কি ? এইরূপ পর্যালোচনা করিয়া তিনি চারি জন বেদপারগ শিষ্যকে এক এক বিভাগে দীক্ষিত করিলেন । ইহাতে স্পষ্ট প্রতীয়মান হইতেছে, বেদ লিখিত থাকিলে তাহ নষ্ট হইবার কোন সম্ভাবনা ছিল না । বেদমন্ত্র লিপিবদ্ধ করা যে নিতান্ত অবৈধ কৰ্ম্ম মহাভারত্নাদিতে তাঙ্গর স্পষ্ট উল্লেখ আছে— বেদবিক্রয়িণশ্চৈব বেদীনাঞ্চৈব দুষকাঃ । বেদানং লেখক"শ্চৈব তে বৈ নিরয়গামিনঃ ॥ 穩 অনুশাসন পৰ্ব্ব ১৬৪৫ । যাহারা বেদ বিক্রয় করেন, বেদবিরুদ্ধ কৰ্ম্ম করেন এবং বেদ লেপেন তাহারা নরকগামী হন । তন্ত্রাদিতেও ইহার প্রতিষেধ বাক্য দৃষ্ট হয় – বেদস্য লিখনং কৃত্বা যঃ পঠেৎ ব্রহ্মহা ভবেৎ। পুস্তকং বা গৃহে স্থাপ্য বজ্রপাতো ভবেৎ ধ্ৰুবং । যিনি বেদ লিখিয়া পাঠ করেন তাহার ব্ৰহ্মহত্যার পাতক হয় এবং বেদপুস্তক গৃহে থাকিলে নিশ্চিত বজ্রপাত হয় । মহর্ষি বেদব্যাস অতি প্রচীনকালের লোক। সচরাচর তিনি যে সময়ের ঋষি বলিয়া সাধারণ্যে পরিচিত আছেন, তদপেক্ষাও তিনি প্রাচীনতর। প্রকৃত মহাভারতখানি সঙ্কলন কালে এ দেশে লিপি-প্রণালী'প্রচলিত ছিল কি না, তদ্বিষয়ে বিস্তর সন্দেহ আছে । মহামুনি ব্যাস প্রণীত ভারত পঞ্চম বেদ বলিয়। উল্লিখিত হইয়াছে ।