পাতা:কল্যাণী - রজনীকান্ত সেন.pdf/৬৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

কল্যাণী পিতার পত্র। স্বাপা জীবন ! - তোমার মঙ্গলাদি না পেয়ে বিশেষ চিন্তাণিত আছি, হস্তাবাদে পত্তর ভির্ণ কি প্রকারে বাচি ? মোদের দারিব্রতার দরুণ বড় কেল্লেশে দিন যায়, ( তাতে ) ম’চ্ছ দুধের প্রেসঙ্গ এবার নাইক এ দেশটায় । ( আবার) আধ কাঠ ধানও এবার পেলাম নাকে ভুয়ে, তাতে খাজান খরচার কড়া তশিল কল্পে ছিধর ভূঞে । আমার, পরণের বস্তর ছিণ, গ্রেহ পারি নি চাইতে ; তাতে দিন রাত্তির গোয়াই তোমার পত্তরের পথ চাইতে । তোমার গৰ্বধারিণী কান্দে কি হৈল বলিয়ে, (বাপা) মা বাপকে কেল্লেশ কি দেয়, সুবুদ্ধি হইয়ে ? তুমি কত নেখুপড়া জান, আমরা ত মুরুমু ; আর, তুমি ভির্ণ বেদ্ধ বাপের কে বুঝিবে দুস্কু! তোমার, কেতাব, জুতো, ইঞ্জিসিন, আর এনগেলাপের মূল্য, নাগে তিরিশ টাকা, শুনেই অত্যান্তিক মাথা ঘুরল । আমার গায়ের বালাপোস, আর তোমার মায়ের তাগা, পরশু, বাধা থুয়ে, কায়কেল্লেশে পাঠিয়েছি পাঁচ টাকা । X > *