পাতা:কাব্যগ্রন্থ (তৃতীয় খণ্ড).pdf/৩৮৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


সিন্ধু পারে কি যে দেখেছিনু মনে নাহি পড়ে, ছিল নাকো আগাগোড়া,— লক্ষ্যবিহীন তীরের মতন ছুটিয়া চলেছে ঘোড়া । চরণে তাদের শব্দ বাজে না, উড়ে নাকো ধূলিরেখা, কঠিন ভূতল নাই যেন কোথা, সকলি বাম্পে লেখা । মাঝে মাঝে যেন চেনা-চেনা মত মনে হয় থেকে থেকে,— নিমেষ ফেলিতে দেখিতে না পাই কোথা পথ যায় বেঁকে । মনে হ’ল মেঘ, মনে হ’ল পাখী, মনে হ’ল কিশলয়, ভালো করে যেই দেখিবারে যাই মনে হ’ল কিছু নয়। দুই ধারে এ কি প্রাসাদের সারি ? অথবা তরুর মূল ? অথবা এ শুধু আকাশ জুড়িয়া আমারি মনের ভুল ? মাঝে মাঝে চেয়ে দেখি রমণীর অবগুষ্ঠিত মুখে,— নীরব নিদয় বসিয়া রয়েছে, প্রাণ কেঁপে ওঠে বুকে । ভয়ে ভুলে যাই দেবতার নাম, মুখে কথা নাহি ফুটে ; হুহু রবে বায়ু বাজে দুই কানে ঘোড়া চলে যায় ছুটে । চন্দ্র যখন অস্তে নামিল তখনো রয়েছে রাতি, পূর্বদিকের অলস নয়নে মেলিছে রক্ত ভাতি । জনহীন এক সিন্ধুপুলিনে অশ্ব থামিল আসি,— সমুখে দাড়ায়ে কৃষ্ণ শৈল গুহামুখ পরকাশি । সাগরে না শুনি জলকলরব না গাহে উষার পার্থী, বহিল না মৃদু প্রভাতপবন বনের গন্ধ মাখি । ৩৬৯ 3–24