পাতা:কাব্যগ্রন্থ (তৃতীয় খণ্ড).pdf/৩৮৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


চিত্রা শুধু এক সখী দেখাইল পথ হাতে ল’য়ে দীপখানি,— মোরা দোহে পিছে চলিমু তাহার, কারো মুখে নাহি বাণী । কত না দীর্ঘ আঁধার কক্ষ সভয়ে হইয়া পার সহসা দেখিলু সমুখে কোথায় খুলে গেল এক দ্বার। কি দেখিমু ঘরে কেমনে কহিব হ’য়ে যায় মনোভুল, নানা বরণের আলোক সেথায়, নানা বরণের ফুল । কনকে রজতে রতনে জড়িত বসন বিছানো কত । মণিবেদিকায় কুসুমশয়ন স্বপ্ন-রচিত মত। পাদপীঠপরে চরণ প্রসারি’ শয়নে বসিলা বধূ— আমি কহিলাম—“সব দেখিলাম, তোমারে দেখিনি শুধু।” চারিদিক হতে বাজিয়া উঠিল শত কৌতুক হাসি। শত ফোয়ারায় উছসিল যেন পরিহাস রাশিরাশি । সুধীরে রমণী দুবাহু তুলিয়া,—অবগুণ্ঠনখানি উঠায়ে ধরিয়া মধুর হাসিল মুখে না কহিয়া বাণী । চকিত নয়ানে হেরি মুখপানে পড়িলু চরণতলে— “এখানেও তুমি জীবনদেবতা ” কহিনু নয়নজলে। সেই মধুমুখ, সেই মৃদুহাসি সেই স্থধাভরা আঁখি,— চিরদিন মোরে হাসালে কাদালে, চিরদিন দিলে ফাকি ! খেলা করিয়াছ নিশিদিন মোর সব সুখে সব দুখে, এ অজানাপুরে দেখা দিলে পুন সেই পরিচিত মুখে ! ৩৭২