পাতা:কাব্যগ্রন্থ (নবম খণ্ড).pdf/৮৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


রাজা সুদৰ্শন । আমার মন আজ এমনি চঞ্চল হয়েছে ! এমন ত কোনোদিন হয় না । এই পূর্ণিমার আলো মদের ফেনার মত চারদিকে উপচিয়ে পড় চে, আমাকে যেন মাতাল করে তুলেছে ! ওগো বসন্ত, যে সব ভীরু লাজুক ফুল পাতার তাড়ালে গভীর রাত্রে ফোটে যেমন করে’ তাদের গন্ধ উড়িয়ে নিয়ে চলেছ তেমনি তুমি আমার মনকে হঠাৎ কোথায় উদাস করে দিলে, তা’কে মাটিতে পা ফেলতে দিলে না – ওরে প্রতিহারী ! প্রতিহারী ; প্রবেশ করিয়া ) কি মহারাণী । সুদৰ্শন । ঐ যে আমবনের বীথিকার ভিতর দিয়ে উৎসব-বালকেরা আজ গান গেয়ে যাচেচ, ডাক ডাক ওদেব ডেকে নিয়ে আয়, একটু গান শুনি । ( প্রতিহারীর প্রস্তান ) ভগবান চন্দ্রমা, আজ আমার এই চঞ্চলতার উপরে তুমি যেন কেবলি কটাক্ষপাত করচ ! তোমার স্মিত কৌতুকে সমস্ত আকাশ যেন ভরে গেছে—কোথাও আমার আর লুকোবার জায়গা নেই—আমি কেমন আপনার দিকে চেয়ে আপনি লজ্জা পাচি ! ভয় লজ্জা সুখ দুঃখ সব মিলে আমার বুকের মধ্যে \ყ o