পাতা:কাব্যগ্রন্থ (পঞ্চম খণ্ড).pdf/১২৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


মালিনী সুধাবৃষ্টি । “সর্বব জীবে দয়া”—জানে সবে অতি পুরাতন কথা— তবু এই ভবে এই কথা বসি আছে লক্ষবর্ষ ধরি’ ংসারের পরর্তীরে । তা’রে পার করি? তুমি আজি আনিয়াছ সোনার তরীতে সবার ঘরের দ্বারে । হৃদয়-অমৃতে স্তন্তদান করিয়াছ সে দেবশিশুরে, লয়েছে সে নবজন্ম মানবের পুরে তোমারে মা বলে’ —স্বৰ্গ আছে কোন দূরে কোথায় দেবতা——কেবা সে সংবাদ জানে । শুধু জানি বলি দিয়া আত্ম অভিমানে বাসিতে হইবে ভালো—বিশ্বের বেদনা আপন করিতে হ’বে,—যে কিছু বাসনা শুধু আপনার তরে তাই দুঃখময় । যজ্ঞে যাগে তপস্যায় কতু মুক্তি নয়— মুক্তি শুধু বিশ্বকাজে । ফিরে গিয়ে ঘরে সে নিশীথে কাদিয়া কহিনু উচ্চস্বরে— —বন্ধু বন্ধু কোথা গেছ বহু বহু দূরে অসীম ধরণীতলে মরিতেছ ঘুরে — ছিনু তা’র পত্রআশে—পত্র নাহি পাই না জানি সংবাদ । আমি শুধু আসি যাই রাজগৃহমাঝে ;–চারিদিকে দৃষ্টি রাখি, > > Q